অ্যাপল তিন লাখ কোটি ডলার মূল্যের প্রতিষ্ঠান হচ্ছে

শিগগিরই তিন ট্রিলিয়ন ডলার বা তিন লাখ কোটি ডলার বাজারমূল্যের মাইলফলক পেরোতে পারে অ্যাপল। সেটি সম্ভব হলে জার্মানির পরেই বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম অর্থনীতির তকমা পাবে মার্কিন এই টেক জায়ান্ট।গেল বছরেই প্রথম প্রতিষ্ঠান হিসেবে দুই লাখ কোটি ডলারের মাইলফলক পেরোয় অ্যাপল।

বাজারে অ্যাপল শেয়ারের দাম ১.৬ শতাংশ বেড়ে পৌঁছেছে ১৭৪ মার্কিন ডলারে। তিন লাখ কোটি ডলার বাজারমূল্যের প্রতিষ্ঠান হতে হলে শেয়ারের দাম হতে হবে ১৮২.৮৫ ডলার। রয়টার্স বলছে, শেয়ার বাজারে অ্যাপলের এই ঊর্ধ্বমুখী গতির পেছনে বিনিয়োগকারীদের বড় ভূমিকা রয়েছে, বিনিয়োগের বিবেচনায় প্রতিষ্ঠানটিকে ‘নিরাপদ স্বর্গ’ হিসেবে দেখছেন তারা।

ট্রিলিয়ন ডলার বাজারমূল্যের প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাজারে অ্যাপলের কাছাকাছি আছে মাইক্রোসফট, অ্যামাজন, অ্যালফাবেট এবং টেসলা। চলতি বছরে এই সবগুলো প্রতিষ্ঠানের শেয়ারমূল্য ১০ থেকে ৭০ শতাংশ বেড়েছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

“শক্তিশালী ব্র্যান্ডের কারণে অর্থনৈতিক শক্তিগুলোর ওঠা-নামা থেকে অ্যাপল রেহাই পাচ্ছে বলে মনে হচ্ছে। এর নতুন পণ্যের পাইপলাইনটিও বেশ শক্তিশালী।”– মন্তব্য করেছেন আর্থিক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান হারগ্রিভস ল্যান্সডাউনের জ্যেষ্ঠ বিনিয়োগ ও বাজার বিশ্লেষক সুজানাহ স্ট্রিটার।“যদিও হ্যান্ডসেট হাতে পাওয়ার ক্ষেত্রে এবং সাধারণ ক্রেতাদের জন্য সরবরাহ নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে কিছু দুর্বলতা আছে, তারপরও অ্যাপল ক্রেতাদের কাছে পৌঁছানোর প্রত্যাশা আছে।”– যোগ করেন তিনি।

২০১৮ সালে প্রথমবারের মতো এক লাখ কোটি ডলার বাজারমূল্যের মাইলফলকে পৌঁছায় অ্যাপল। বাজারমূল্য দ্বিগুণ করতে দুই বছর সময় লেগেছিল প্রতিষ্ঠানটির।

বিডিনিউজ

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

1 × 2 =