অ্যামাজন জঙ্গলে মিললো নতুন প্রজাতির বিশাল সাপ

পৃথিবীর ফুসফুস হিসাবে খ্যাত অ্যামাজন জঙ্গল যেন এক চির-হরিৎ বিস্ময়। শুধু গাছ-গাছালিই নয়, সেখানে রয়েছে হাজারো প্রজাতির সব প্রাণী। ৬৫ মিলিয়ন বছর ধরে প্রাকৃতিক পরিবর্তনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে টিকে সেই অ্যামাজনে এবার দেখা মিলল বিশ্বের সবচেয়ে বড় অ্যানাকোন্ডার।

কুইন্সল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের এক দল গবেষক অ্যামাজন জঙ্গলের ইকুয়েডর অংশে ভ্রমণে গিয়ে উত্তরাঞ্চলীয় সবুজ অ্যানাকোন্ডার (ইউনেকটেস আকায়ইমা) খোঁজ পান। তবে সাপের এ প্রজাতি আগে নথিভুক্ত ছিল না। স্থানীয়ভাবে গুঞ্জন আছে, এটি পৃথিবীতে বেঁচে থাকা সবচেয়ে বড় প্রজাতির সাপ।

যার দৈর্ঘ্য ২৬ দশমিক ৮ ফুট লম্বা ও ওজন প্রায় ২০০ কেজি । বর্তমানে এটাই বিশ্বের সবচেয়ে বড় সাপ। নতুন এই প্রজাতির সাদৃশ্য রয়েছে ১ কোটি বছর আগে অস্তিত্ব থাকা সবুজ অ্যানাকোন্ডার সাথে । তাই এই প্রজাতির সাপটির নাম দেয়া হয়েছে, নর্দান গ্রিন অ্যানাকোন্ডা।

গত ১৬ ফেব্রুয়ারি গ্রিন অ্যানাকোন্ডা নিয়ে একটি গবেষণা বৈজ্ঞানিক জার্নাল ‘ডাইভারসিটি’তে প্রকাশ করা হয়। এরপরই ৪০ বছর বয়সী ডাচ জীববিজ্ঞানী অধ্যাপক ভঙ্ক সামাজিক মাধ্যমে একটি ভিডিওটি শেয়ার করেন। যেখানে দেখা যায় বিশাল আকারের এই জলজ দৈত্যের পাশাপাশি সাঁতার কাটছেন তিনি!।

অধ্যাপক ভঙ্ক বলেন, আমরা সাপটির নতুন প্রজাতির লাতিন নাম দিয়েছি ইউনেক্টেস আকায়ামা, ইংরেজিতে নর্দার্ন গ্রিন অ্যানাকোন্ডা। আকায়ামা শব্দটি এসেছে উত্তর দক্ষিণ আমেরিকার বিভিন্ন আদিবাসী ভাষা থেকে। যার অর্থ মহান বা বিরাট সাপ। আমার দেখা সবচেয়ে বড় অ্যানাকোন্ডা এটি । যা দেখতে অনেকটা গাড়ির টায়ারের মতো মোটা । আমার মাথার আকারের মতো ছিল এর বিশাল মাথা।

এর আগে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সাপ ছিল জালিকার অজগর। এরা গড়ে ২০ ফুট পর্যন্ত লম্বা হয় । এছাড়া এতদিন অ্যামাজনে গ্রিন অ্যানাকোন্ডার একটি প্রজাতি ছিল, যাকে বলা হতো দৈত্যাকার অ্যানাকোন্ডা। অধ্যাপক ভঙ্ক বলেন, প্রথমবার দেখে একই প্রজাতির মনে হলেও এটি ছিল গ্রিন অ্যানাকোন্ডা।

অ্যানাকোন্ডা প্রজাতি গবেষণা করা, কুইন্সল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞানের এক অস্ট্রেলীয় অধ্যাপক জানান, এই আবিষ্কার মাধ্যমে বুঝা যায় যে দুটি প্রজাতি প্রায় ১ কোটি বছর আগে একে অপরের থেকে আলাদা হয়েছিলো। আশ্চর্যের বিষয়, জেনেটিক পার্থক্যর পরও দুটি প্রাণী সম্পূর্ণ অভিন্ন।

অ্যানাকোন্ডা হলো বিশালাকারের সাপ। এরা বিষধর নয়। দক্ষিণ আমেরিকার উষ্ণ অঞ্চলগুলোর পানিতে বা পানির কাছে এ সাপের দেখা মেলে। সবুজ অ্যানাকোন্ডা হলো পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি ওজনের সাপ। একেকটি সাপের ওজন ২২৭ কিলোগ্রাম পর্যন্ত হতে পারে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

4 × three =