আজ সত্য সাহার প্রয়াণ দিবস

দেশের সঙ্গীত জগতের বিস্ময়কর এক প্রতিভা ছিলেন সত্য সাহা। অসংখ্য চলচ্চিত্রের সুপারহিট, জনপ্রিয়, কালজয়ী গানের সুরস্রষ্টা তিনি। তিনি কিংবদন্তী সঙ্গীতজ্ঞ- সত্য সাহা। এই মানুষটির আজ ২২তম মৃত্যুবার্ষিকী। তিনি ১৯৯৯ সালের ২৭ জানুয়ারি, ৬৫ বছর বয়সে পরলোকগমন করেন।

১৯৫৬ সালে বাংলাদেশ বেতারের সুরকার পঞ্চানন মিত্রের সহকারী হয়ে সঙ্গীতে কাজ শুরু করেন । ১৯৬১-তে তিনি বেতারে কন্ঠশিল্পী হিসেবে তালিকাভুক্ত হন।সত্য সাহা পঞ্চাশের দশকে ভারতের কলকাতায় ‘মেজোমশাই’ ও ‘জালিয়াত’ ছবিতে সহকারী সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে কাজ করেছেন।

১৯৬১ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত, মহিউদ্দিন পরিচালিত ‘তোমার আমার’ ছবিতে গায়ক হিসেবে প্রথম ঢাকার চলচ্চিত্রে আত্মপ্রকাশ করেন। সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে প্রথম কাজ শুরু করেন আলী মনসুর পরিচালিত ‘জানাজানি’ ছবিতে, কিন্তু সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে তার প্রথম মুক্তি পায় সুভাষ দত্ত পরিচালিত ‘সুতরাং’ ছবিটি (১৯৬৪)। তিনি কিছু টেলিভিশন নাটকেরও সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন।

সত্য সাহা বেশকটি ছবি প্রযোজনাও করেছেন- বিনিময়’ অশিক্ষিত, সাম্পানওয়ালা, ছুটির ঘন্টা, উজান ভাটি, পুরষ্কার, চরমপত্র, রাম রহিম জন, অন্যতম। তার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের নাম, ‘স্বরলিপি বানিচিত্র’।তিনি ‘রাম রহিম জন’ নামে একটি ছবি পরিচালনাও করেন।

সত্য সাহা তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। তিনি যেসব ছবির জন্য শ্রেষ্ঠ সুর-সঙ্গীত পরিচালকের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন- ১৯৯৪ সালে ‘আগুনের পরশমণি’, ১৯৯৬ সালে ‘অজান্তে’, ২০০১ সালে ‘চুড়িওয়ালা’।২০১৩ সালে মরণোত্তর স্বাধীনতা পুরস্কার লাভ করেন সত্য সাহা।

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

3 × five =