ইভ্যালি কান্ডে মামলা, তাহসান- মিথিলা-শবনম ফারিয়া আসামী

ইভ্যালির গ্রাহকদের অর্থ আত্মসাতের ঘটনায়  সংশ্লিষ্ট থাকার অভিযোগে তাহসান- মিথিলা-শবনম ফারিয়ার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

ধানমন্ডি থানায় এ মামলাটি করেন সাদ স্যাম রহমান নামের একজন গ্রাহক। মামলায় আসামি করা হয়েছে জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী ও ইভ্যালির চিফ গুডনেস অফিসার তাহসান খান, সোস্যাল মিডিয়া তারকা এবং ইভ্যালির প্রধান বিপণন কর্মকর্তা আরিফ আর হোসাইন, প্রধান জনসংযোগ কর্মকর্তা শবনম ফারিয়া, ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর রাফিয়াদ রশিদ মিথিলা।

এ ছাড়া মামলায় এক নম্বর আসামি করা হয়েছে ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিন এবং দুই নম্বর আসামি ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. রাসেল। প্রতারণা ও অর্থ আত্মসাৎ মামলায় বর্তমানে এ দুজন কারাগারে রয়েছেন। মামলার অন্য আসামিরা হচ্ছেন- ইভ্যালির ভাইস প্রেসিডেন্ট আকাশ, ক্যাটাগরি হেড মোহাম্মদ আবু তাহের সাদ্দাম, এক্সিকিউটিভ অপারেশন (বাইক) মো. আবু তায়েশ।

মামলার বাদী সাদ স্যাম রহমান বলেন, আমি ইভ্যালিতে বাইক অর্ডার করেছিলাম। দীর্ঘ চেষ্টায়ও বাইক পাইনি। তাই বাধ্য হয়ে মামলা করেছি। তিনি বলেন, তাহসানের মত একজন মানুষকে ট্রাস্ট করেছি। এর বাইরে যারা আছেন তারাও ইভ্যালির গুনগান গেয়েছেন। তাদের দেখে আশান্বিত হয়েছিলাম। ভেবেছি এরা থাকলে কোম্পানি প্রতারণা করবেনা। তাই তিন লাখ ১৮ হাজার টাকার বাইক অর্ডার করেছি। সাতমাস আগে অর্ডার করেছি, এখন পর্যন্ত পাইনি। কতদিন এভাবে বাইকের জন্য অপেক্ষা করবো।

মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের উপপরিদর্শক মো. রাজিব হাসান বলেন, তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এরমধ্যে আটক শামীমা নাসরিন ও মো. রাসেলকে শোন অ্যারেস্ট দেখানোর আবেদন জানিয়েছি আদালতে। তিনি বলেন, আসামীদের মধ্যে বাকি যারা আছে, তাদের সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে আমরা খোঁজখবর নিচ্ছি। নাম ঠিকানা যাচাই-বাছাই করছি। প্রতারণায় জড়িত থাকলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

2 × three =