এ আর রহমানের মা ভাবতেন অস্কার পুরস্কার সোনা দিয়ে তৈরি

তিনি রত্নগর্ভা। এ আর রহমানের মা হয়ে তিনি গর্বিত। সারা বিশ্ব তার সন্তানকে চেনেন। তবে মায়ের মন সকলের থেকে আলাদা। পৃথিবী বিখ্যাত এই শিল্পীর ঝুড়িতে বহু সম্মান। আর সেই পুরস্কার নিয়েই এবার একটি মজার তথ্য জানালেন শিল্পী। কী ভাবে ছেলের পুরস্কার যত্ন করে গুছিয়ে রাখতেন তার মা তা জানালেন।

এ আর রহমান ড্যানি বয়েলের ২০০৮ সালের চলচ্চিত্র স্লামডগ মিলিয়নিয়ারের জন্য দুটি অস্কার, দুটি গ্র্যামি, একটি বাফটা এবং একটি গোল্ডেন গ্লোব জিতেছেন। তার গান জয় হো গানটি গেয়েছেন সুখবিন্দর সিং এবং লিখেছেন গুলজার৷ ইতিমধ্যে রহমান তার অনবদ্য কৃতিত্বের জন্য ছয়টি জাতীয় পুরস্কার জিতেছেন। একটি সাক্ষাৎকারে সম্প্রতি তিনি জানান তার প্রয়াত মা কারিমা বেগম তার সমস্ত আন্তর্জাতিক পুরস্কার তার দুবাইয়ের বাড়িতে একটি তোয়ালে মুড়িয়ে রেখেছিলেন। ভেবেছিলেন যে সেগুলো সোনার তৈরি।

এ আর রহমান আরও বলেছেন, ‘আমি দুবাইয়ে আন্তর্জাতিক পুরষ্কার রেখে এসেছি। কারণ, এটি একটি তোয়ালে মোড়ানো ছিল। আমার মা এটি একটি তোয়ালে জড়িয়ে রেখেছিলেন। তিনি ভেবেছিলেন এটা সোনার। তিনি মারা যাওয়ার পর আমি তার ঘরে গিয়ে ওগুলো পেয়েছিলাম। পরে দুবাইয়ের ফিরদৌস স্টুডিয়োতে দিয়েছিলাম। একটি সুন্দর শোকেসে ফিরদৌস স্টুডিয়োতে রাখা রয়েছে। তিনি আরও বলেছেন, কিছু পুরস্কার তার কাছে এখনও পৌঁছায়নি।’

নেটফ্লিক্স ইন্ডিয়ার সঙ্গে একটি সাম্প্রতিক চ্যাটে, রহমান বলেছেন কী ভাবে তার মা তাকে কঠিন সময়ে সমর্থন করেছিলেন। ‘যখন আমি আমার স্টুডিয়ো তৈরি করি, তখন আমার কাছে অ্যামপ্লিফায়ার বা ইকুয়ালাইজার কেনার মতো টাকা ছিল না। একটি তাক এবং কার্পেট ছিল। কিছু কেনার টাকা না পেয়ে বসে থাকতাম। আমি যখন এটি তৈরি করেছিলাম তখন সেরকম জায়গাও ছিল না। কোনও সরঞ্জাম ছাড়াই স্টুডিয়োর ভিতরে বসে থাকতাম। আমার মা তার গয়না বন্ধক রাখার পর আমার প্রথম রেকর্ডার এসেছিল। তখনই আমি ক্ষমতাশালী মনে করি নিজেকে। আমি আমার ভবিষ্যৎ দেখতে পাচ্ছিলাম। সেই মুহূর্ত থেকে আমার জীবন বদলে গিয়েছিল।’

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

nineteen − 5 =