কোনালের চলচ্চিত্র পুরস্কার বাতিল চেয়ে রিট

‘বীর’ চলচ্চিত্রের “তুমি আমার জীবন আমি তোমার জীবন” শিরোনামে গাওয়া গানে কণ্ঠ দিয়ে সংগীতশিল্পী সোমনূর মনির কোনালের পাওয়া জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বাতিলের জন্য হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হয়েছে।

সোমবার (৭ মার্চ) উচ্চ আদালতের সংশ্লিষ্ট শাখায় চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সদস্য শেখ শামীমের পক্ষে রিটটি করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খান জিয়াউর রহমান। রিটে তথ্য মন্ত্রণালয় ও জুরি বোর্ডসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী করা হয়েছে।

এ বিষয়ে আইনজীবী খান জিয়াউর রহমান বলেন, কোনালের নাম তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে প্রকাশ হওয়ার পর থেকেই গানের বিষয়টি নিয়ে শুরু হয় বিতর্ক ও সমালোচনা। বেশ কিছু গণমাধ্যম ও সামাজিকমাধ্যম এ নিয়ে সরব হয়।

সেরা নারী কণ্ঠশিল্পী হিসেবে প্রথমবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী কোনাল। তবে এ সিনেমার গানটি প্রকাশের পরই এ নিয়ে বিতর্ক ও সমালোচনা দেখা দিয়েছিল। পুরানো একটি জনপ্রিয় গান ‘তুমি আমার জীবন আমি তোমার জীবন’ গানের ব্রিজলাইন অনুমতি ছাড়া ‘বীর’ সিনেমায় ব্যবহার করায় এ নিয়ে শোবিজ অঙ্গনে বিতর্ক উঠে।

সংগীতাঙ্গনের সংশ্লিষ্টরা বলছেন, অনুমতি ছাড়াই একটি পুরোনো জনপ্রিয় গানের লাইন ‘তুমি আমার জীবন আমি তোমার জীবন’ ব্রিজলাইন হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে কোনালের গাওয়া গানে, যা কপিরাইট আইনের লঙ্ঘন। এমন গানকে রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি দিয়ে কপিরাইট আইনসহ এর সৃষ্টিকারীকেও ছোট করা হয়েছে। একইসঙ্গে অন্যের গান অনুমতি ছাড়া ব্যবহারেও উৎসাহিত করা হয়েছে।

১৯৮৯ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘অবুঝ হৃদয়’ সিনেমার ‘তুমি আমার জীবন আমি তোমার জীবন’ গানটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়। আহম্মেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের লেখা ও সুরে ‘তুমি আমার জীবন’ শিরোনামের ওই গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছিলেন রুনা লায়লা ও এন্ড্রু কিশোর।

তুমুল জনপ্রিয় এ গানটিরই ব্রিজলাইন নিয়ে ‘বীর’ ছবির জন্য নতুন করে ‘ভালোবাসার মানুষ তুমি’ গানটি তৈরি করা হয়েছে। গানটি লিখেছেন কবির বকুল। ভারতের সংগীত পরিচালক আকাশ সেনের সংগীতায়োজনে গানটিতে কণ্ঠ দেন ইমরান ও কোনাল। সিনেমাটি মুক্তির পরই এ গান নিয়ে সমালোচনা ও বিতর্ক শুরু হয়।

জাগো নিউজ

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

thirteen + six =