গানে ফিরতে চান রিংকু

দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ সংগীতশিল্পী রিংকু। ২০২০ সালে দুবার স্ট্রোক হয় তাঁর। এরপর তাঁর ডান হাত ও পা প্যারালাইজড হয়ে যায়। এরপরও একাধিক স্ট্রোকের শিকার হন রিংকু। ঠিকমতো কথা বলতে না পারায় বন্ধ হয়ে যায় গানের চর্চা। রিংকু থাকেন নওগাঁর আত্রাই উপজেলার বড় সাওতা গ্রামের নিজ বাড়িতে।

২০২২ সালের জানুয়ারিতে সর্বশেষ মুক্তি পায় তাঁর গাওয়া গান ‘রঙিলা নৌকা’। দুই বছর পর নতুন গান প্রকাশ পাচ্ছে রিংকুর। চার বছর আগে রেকর্ড করা এই গানের শিরোনাম ‘জোছনা বিলাস’। লিখেছেন ও সুর করেছেন এ আর রাজ। শিগগির মিডিয়া ভয়েসের ব্যানারে মুক্তি পাবে গানটি।

গত শনিবার নতুন গানের খবর জানাতে আয়োজন করা হয় সংবাদ সম্মেলনের। সেখানে উপস্থিত ছিলেন রিংকু। জানালেন, আগের চেয়ে কিছুটা সুস্থ তিনি। পুরোপুরি সুস্থ হয়ে আবার গানে নিয়মিত হতে চান। অসুস্থতার এই সময়ে কাউকে কাছে না পাওয়ার কষ্টও আছে তাঁর মধ্যে।

রিংকু বলেন, ‘অনেক দিন পর নতুন গান প্রকাশ পাচ্ছে। আমার জন্য খুব আনন্দের খবর। গানের মানুষ তাই গান ছাড়া কিছু ভালো লাগে না। এই গান যখন রেকর্ডিং করেছিলাম, তখন এতটা অসুস্থ ছিলাম না। তিনবার স্ট্রোক করার আগে ভয়েস দিয়েছিলাম। আশা করি শ্রোতারা গানটি শুনবেন।’

নিজের শারীরিক অবস্থার খবর জানিয়ে রিংকু বলেন, ‘আগের চেয়ে এখন একটু সুস্থ আছি। ডাক্তার বলেছেন, ভালো চিকিৎসা হলে শারীরিক অবস্থার উন্নতি হবে, তবে একটু সময় লাগবে। সবার কাছে দোয়া চাই যেন আবার গান গাইতে পারি। যত দিন বাঁচব, তত দিন যেন গান গাইতে পারি।’

 

অসুস্থতার সময়ের কথা জানিয়ে রিংকু বলেন, ‘ইন্ডাস্ট্রির মানুষ অনেক স্বার্থপর। আমাকে প্রয়োজন হয় না; তাই কেউ যোগাযোগ করে না, খোঁজখবর নেয় না। এটাই কষ্ট লাগে। কারও কাছ থেকে কোনো হেল্প পাইনি। তবে এ নিয়ে কারও প্রতি কোনো আক্ষেপ নেই।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন জাজ মাল্টিমিডিয়ার সিইও আলিমুল্লাহ খোকন; গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক মিল্টন খন্দকার; গায়ক, গীতিকার ও সুরকার প্লাবন কোরেশী; কণ্ঠশিল্পী এফ এ সুমন প্রমুখ। এ সময় রিংকুর চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রী ও সমাজের বিত্তবানদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন অতিথিরা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

eighteen + three =