‘জেকে ১৯৭১’ সিনেমায় পাইলট সব্যসাচী

‘জেকে ১৯৭১’ সিনেমা নির্মাণের কথা শুনেই হইচই পড়ে গিয়েছিল বাংলাদেশে। কারণ দেশ-বিদেশের অভিনয় শিল্পী নিয়ে ইংরেজিতে তৈরি হবে এই ছবি, যা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ওপর নির্মিত প্রথম আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র।

‘জেকে ১৯৭১’ ছবিতে বিমান ছিনতাইকারীর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন কলকাতার অভিনেতা শুভ্র সৌরভ দাস। বিমানের পাইলটের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন কলকাতারই স্বনামধন্য অভিনেতা সব্যসাচী চক্রবর্তী। আরও অভিনয় করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অভিনেতা ফ্রান্সিসকো রেমন্ড, রাশিয়ান অভিনেত্রী ডেরিয়া গভ্রুসেনকো, অভিনেতা নিকোলাই নভোমিনাস্কি সহ তিরিশের বেশি অভিনয়শিল্পী।

চাঞ্চল্য সৃষ্টির আরও বড় কারণ ছবিটির কাহিনি। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সমর্থনে নানা দেশের মানুষ নানা ভাবে এগিয়ে এসেছিলেন। তবে ফরাসি তরুণ জ্যঁ কুয়ে মুক্তিযুদ্ধের সমর্থনে যা করেছিলেন, তা অভাবনীয়। তিনি ছিনতাই করেছিলেন পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের একটি বিমান। ১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর প্যারিসের অর্লি বিমানবন্দরে পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের বিমান ছিনতাইয়ের পর জ্যঁ কুয়ে যাত্রীদের মুক্তিপণ হিসেবে দাবি করেন বাংলাদেশের স্বাধীনতাকামী মানুষের জন্য কুড়ি টন ওষুধ ও চিকিৎসা সামগ্রী।

রুদ্ধশ্বাস এই ঘটনা অবলম্বনে ‘জেকে ১৯৭১’ নির্মাণের পরিকল্পনা করেন বাংলাদেশের বিশিষ্ট পরিচালক ফাখরুল আরেফিন খান। বঙ্গবন্ধু মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষে তিনি এই উপহার দিতে চেয়েছিলেন। একই সঙ্গে তার মাথায় ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের সুবর্ণজয়ন্তী এবং এই বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনার পঞ্চাশ বছরের কথা। অতিমারির কারণে বিলম্বিত হলেও সম্প্রতি শেষ হয়েছে ছবিটির সম্পাদনা, ডাবিং, কালার কারেকশন, ভিএফএক্সের কাজ।

চলচ্চিত্রটির বিষয়ে পরিচালক বলেছেন, “আমরা প্রথম বিশ্বযুদ্ধের, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের, আফগান যুদ্ধ এমনকি সোমালিয়ার যুদ্ধ নিয়ে নির্মিত সিনেমা দেখি। কিন্তু আন্তর্জাতিক দর্শকদের দেখানোর জন্য ইংরেজিতে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের কোনও সিনেমা নেই। তাই আমরা এই সিনেমাটি বানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম।”

আনন্দবাজার

 

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

six − four =