‘জেনারেল আজিজের ওপর নিষেধাজ্ঞা সম্পূর্ণ রাজনৈতিক’ এডিটরস গিল্ডের গোলটেবিল বৈঠকে বক্তাগণ

সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) আজিজ আহমেদ কিংবা পুলিশের সাবেক আইজিপি বেনজির আহমেদের ওপর দেওয়া মার্কিন নিষেধাজ্ঞা সম্পূর্ণ রাজনৈতিক বলে মনে করেন বিশিষ্টজনরা। তারা বলছেন, যুক্তরাষ্ট্র যদি তাদের ওপর কোনো দায় চাপাতেই চাইতো তবে ক্ষমতায় থাকার সময়ই প্রতিবাদ করা উচিত ছিলো। শনিবার রাজধানীর বনানীতে এডিটরস গিল্ড আয়োজিত দেশে দেশে ‘ক্ষমতার চেহারা’ শিরোনামে এক গোলটেবিল আলোচনায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

আলোচনায় বিশিষ্টজনের বলেন, বাংলাদেশ এখন ভূরাজনীতির শিকার। পরাশক্তিগুলো নিজেদের ক্ষমতা বৃদ্ধি এবং শক্তিশালী করতে ছোট রাষ্ট্রগুলো যারা অর্থনৈতিক ভাবে শক্তিশালী হয়ে উঠছে, এবং ভৌগোলিক কারণে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে তাদের ওপর চাপ তৈরি করছে। যারই হাতিয়ার নিষেধাজ্ঞার মতো বিষয়গুলো।

যদি সত্যি সত্যি যুক্তরাষ্ট্র গণতন্ত্রের ধারক বাহক হতো তবে তারা ফিলিস্তিনে চলমান গণহত্যার প্রতিবাদ করতো এবং বন্ধের উদ্যোগ নিতো উল্লেখ করে আলোচকরা বলেন, যুক্তরাষ্ট্র পাকিস্তানের অনেক শাসকের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিতো। কিন্তু তারা তা না করে দুর্বল রাষ্ট্রগুলোকে নিজেদের আয়ত্তে আনতে চায়।

তারা আরও বলেন, বাংলাদেশ এখন ভূরাজনীতির অংশ। সকলেই চায় বড় শক্তির সাথে ভারসাম্য রেখে চলতে। তবে এখন পৃথিবী মাল্টিপোলার হয়েছে। এখন ছোট ছোট দেশগুলোর অবস্থান ভালো হয়েছে। আমাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত হতে হবে।

আলোচকদের মতে, ক্ষমতার রাজনীতির কারণে সৎ থাকা যায় না। ক্ষমতাকেন্দ্র থেকে দুর্নীতি শুরু হয়। রাষ্ট্রীয় পর্যায় থেকে এর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেবার তাগিদ দেন আলোচকরা। এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগে দীর্ঘদিন অধ্যাপনা করা ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, আমাদের মধ্যে অনেকের ধারণা যুক্তরাষ্ট্রের জন্য আমাদের গণতন্ত্র তৈরি হয়েছে। কিন্তু তথ্য প্রমাণের সাথে এটি যায় না। আমাদের গণতন্ত্র পশ্চিমা রাষ্ট্রের ওপর ভিত্তি করে হয়নি।

তিনি আরও বলেন, মনে রাখতে হবে ৭১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন আমাদের সাথে ছিলো আর আমেরিকা ছিলো না। আজিজকে যা দিয়েছে তা রাজনৈতিক। কারণ যারা ফিলিস্তিনে গণহত্যা চোখে দেখে না। এরকম নিষেধাজ্ঞা দিয়ে কী হবে। আর যদি দিতেই হয় তবে জারদারিকে দেয়া উচিত। ধারণা করা হচ্ছে, আজিজ বা বেনজিরের জন্য প্রতিষ্ঠান ধ্বংস হয়ে গেলো। তাহলে পশ্চিমা দেশে কোনো প্রতিষ্ঠানই দাঁড়াতো না।

এডিটরস গিল্ডের যুগ্ম সম্পাদক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজার সঞ্চালনায় গোলটেবিল আলোচনায় আরও বক্তব্য রাখেন লেখক,গবেষক, সমাজ ও রাষ্ট্রচিন্তক অধ্যাপক আবুল কাসেম ফজলুল হক, রাজনীতি বিশ্লেষক ও ডাকসুর প্রথম নারী ভিপি অধ্যাপক মাহফুজা খানম, নিরাপত্তা ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) হেলাল মোর্শেদ খান (বীর বিক্রম), নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাউথ এশিয়ান ইনস্টিটিউট অফ পলিসি অ্যান্ড গভর্ন্যান্সের (এসআইপিজি) সিনিয়র ফেলো ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) ড. এম সাখাওয়াত হোসেন, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক ও সাবেক গবেষণা পরিচালক অধ্যাপক ড. আব্দুর রব খান, দুদক আইনজীবী অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান ও এনটিভির বার্তা প্রধান জহিরুল আলম।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

fifteen − 12 =