টাঙ্গাইলের মুশুদ্দি এখন বিষমুক্ত নিরাপদ সবজির গ্রাম

ইফতেখারুল অনুপ, বাসস

টাঙ্গাইল, ২৩ জানুয়ারি, ২০২২ (বাসস) : বছরজুড়ে আবাদী জমিতে বিভিন্ন রকমের সবজি আবাদ করে এখন ভ্যাগের পরিবর্তন ঘটিয়েছেন জেলার ধনবাড়ী উপজেলার মুশুদ্দির কৃষকরা।

এ গ্রামটি ‘বিষমুক্ত নিরাপদ সবজির গ্রাম’ হিসেবে পরিচিত। সবজির আবাদে ভালো দাম পাওয়ায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ালেখাও করছে তাদের সন্তানেরা। বিষমুক্ত সবজি আবাদ হওয়ায় উপজেলা ও জেলার চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে যাচ্ছে।

উপজেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানায়, উপজেলায় ৫৫০ হোক্টর সবজি আবাদ হয়েছে। শুধু মুশুদ্দি ইউনিয়নে ১০৩ হোক্টর। সবজি আবাদের জন্য নারী ও পুরুষরা মাঠে সমভাবে কাজ করে। প্রণোদনা, পরামর্শ ও বিভিন্ন প্রদর্শনীতে কৃষকদের আগ্রহতে বেড়েই চলছে এ আবাদ।

সরেজমিনে দেখা যায়, মুশুদ্দি ইউনিয়নটি সবজি প্রধান এলাকা। এলাকার কৃষকরা সবজি আবাদের পাশাপাশি কিছু জমিতে ধান চাষ করে। বছর জুড়েই লাউ, মিষ্টি কুমড়া, করলা, শিম, শসা, চিচিংগা, রবরটি, ঢেঁড়স, পুইশাক, লাউশাক, ফুলকপি, বাঁধাকপিসহ বিভিন্ন রকমে সবজি পর্যায়ক্রমে একের পর এক আবাদ হচ্ছে। দেশের ১০টি মডেল সবজির গ্রামের মধ্যে মুশুদ্দি একটি। রাসায়নিক সারের পরিবর্তে জৈব সার দিয়ে আবাদ করা হয়ে এ সবজি। পোকা দমনের জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে সেক্সফেরোমিও ও আলোর ফাঁদ। কম্পোস্ট ও জৈব সার ব্যবহারে প্রাকৃতিকভাবে বেড়ে উঠছে সবজি গাছ। আবাদকৃত সবজিগুলো কৃষকরা ভোর বেলায় ক্ষেত থেকে সংগ্রহ করে স্থানীয় বাজারে বিক্রির জন্য নিয়ে যায়। বিভিন্ন অঞ্চলের পাইকাররা এ সবজি ক্রয় করে ট্রাক যোগে নিয়ে যাচ্ছে। স্থানীয় পাইকারাও সবজি ক্রয় করে স্থানীয় বাজারে বিক্রি করে।

কামাড়পাড়া গ্রামের কৃষক আব্দুর রাজ্জাক (৪৩) বলেন, আমি ১৫ বছর যাবত বছরজুড়ে একের পর এক বিভিন্ন জাতের সবিজ আবাদ করি। এবার ৭৫ শতাংশ জমিতে শিম, লাউ, বেগুন, করলা ও পটল আবাদ করেছি। সকল খরচ বাদে প্রতিবছর আড়াই থেকে ৩ লাখ টাকা থাকে। মেয়েকে অনার্সে পড়ালেখা করাচ্ছি। এ ইউনিয়নের সবজি আবাদে সফলতা দেখে উপজেলায় অন্যান্য কৃষকদের আগ্রহও বেড়েছে। কৃষক হারুন মিয়া বলেন, শুধু আমিই না, আমার মতো যারা সবজি আবাদ করে সকলেরই ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটেছে। এক সময় আমরা এ এলাকায় শুধু ধান চাষ করতাম। ধান চাষের চেয়ে সবজি আবাদে পাঁচগুণ লাভ। আয়ের টাকার বাড়িতে দালান করেছি। ছেলে-মেয়েদের পড়াশোনা করাচ্ছি। অপর কৃষক আসাদুজ্জামান বলেন, এ সবজি আবাদ আমার ভাগ্যের পরির্বতন এনে দিয়েছে। এক সময় অনেক কষ্টে দিন পার করতাম। শুধু আমি না ইউনিয়নের শতশত কৃষক এখন স্বাবলম্বী। কৃষকদল গঠন করে এখানে সবজি আবাদ করা হচ্ছে। উপজেলা কৃষি অফিস থেকে কর্মকর্তারা মাঠে এসে সকল পরমর্শ দিচ্ছে।

স্থানীয় সবজি ব্যবসায়ী আব্দুল কাদের বলেন, আমি প্রতিদিন সকালে মুশুদ্দি বাজারে থেকে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে বিষ ও রাসায়নিক সার মুক্ত সবজি ক্রয় করে ট্রাকযোগে রাজধানীসহ বিভিন্ন জেলায় পাঠাই। মুশুদ্দি ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ফরিদ মিয়া বলেন, ইউনিয়নটি মূলত সবজি প্রধান এলাকা। কৃষকরা বছরজুড়ে সকল ধরনের সবজি আবাদ করে। মাঠে গিয়ে সব সময় পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। বাণিজ্যিক ভিত্তিতে সবজি আবাদ করছেন কৃষকরা।

ধনবাড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাজেদুল ইসলাম বলেন, কৃষি অফিস থেকে সকল ধরনের পরামর্শ ও প্রণোদনা মুশুদ্দি ইউনিয়নের কৃষকদের দেয়া হচ্ছে। ওই এলাকার মাটি খুবই উর্বর। সবজি চাষে খুবই উপযোগী। সবজি চাষ ভালো হয়। কৃষকরা সবজি আবাদে খুবই আগ্রহী। সবজি আবাদ করে মুশুদ্দি ইউনিয়নের কৃষকরা লাভবান হচ্ছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

20 − 7 =