নাটক জুলেখায় সজল-প্রভা

একটি করপোরেট অফিসে বড় অফিসার পদে চাকরি করেন আরিফ। শিক্ষিত-মার্জিত আরিফ সম্প্রতি বিয়ে করেছে। অফিসের একটি কাজে কক্সবাজার যান আরিফ। বিয়ের পর কোথাও যাওয়া হয়নি; তাই স্ত্রীকেও সঙ্গে নিতে চান। তার স্ত্রী জুলেখার অনিচ্ছা সত্ত্বেও স্বামীর সঙ্গে যান। স্ত্রীকে নিয়ে এসেছে ঠিকই, কিন্তু তাকে নিয়ে কোথাও যেতে খুব লজ্জাবোধ করেন। এ লজ্জা সেই লজ্জা নয়, এই লজ্জা প্রেস্টিজিয়াস লজ্জা!

 

আরিফের লজ্জার কারণ—তার স্ত্রী গেঁয়ো এবং আনস্মার্ট। শিক্ষা, কথাবার্তা, চালচলন কিংবা পোশাক সবকিছুতেই তথাকথিত শিক্ষিত কিংবা আল্ট্রামডার্ন টাইপের মেয়েদের মতো নয়। বরং তার কথার মধ্যে আঞ্চলিক টান রয়েছে। মেকআপ নিতে মোটেই আগ্রহী নয়। স্বাভাবিকভাবেই তার প্রতিটা পদক্ষেপে ভুল ধরেন আরিফ।

 

 

জুলেখাকে নিয়ে আরিফ বাইরে বেড়াতে কিংবা সমুদ্রপাড়ে যান। তাই একদিন একাই ওই আটপৌড়ে শাড়ি পরে জুলেখা জীবনের প্রথম সমুদ্র দর্শনে যায়। এখানেই ঘটনাচক্রে সাফিন নামে এক স্থানীয় ছেলের সঙ্গে জুলেখার পরিচয় হয়। একসময় দুজনার সঙ্গে তৈরি হয় ভাইবোনের মধুর সম্পর্ক। কিন্তু এই দৃশ্য একদিন আরিফ দেখে ফেলেন। তারপর গল্প মোড় নেয় ভিন্ন দিকে।

 

এমন গল্প নিয়ে নির্মিত হয়েছে একক নাটক ‘জুলেখা’। আসাদুজ্জামান সোহাগের রচনা ও চিত্রনাট্যে নাটকটি পরিচালনা করেছেন সরদার রোকন। এতে জুলেখা চরিত্রে অভিনয় করেছেন সাদিয়া জাহান প্রভা। আরিফ চরিত্রটি রূপায়ন করেছেন আব্দুন নূর সজল। এছাড়াও অভিনয় করেছেন আমিন আজাদ, জিদান সরকার প্রমুখ। শনিবার (১৫ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৯টায় এনটিভিতে প্রচার হবে নাটকটি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

13 − 7 =