পাপুয়া নিউ গিনিকে হারিয়ে বিশ্বকাপে ঐতিহাসিক জয় উগান্ডার

চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ঐতিহাসিক জয় স্বাদ পেয়েছে উগান্ডা ক্রিকেট দল। আজ ‘সি’ গ্রুপে উত্তেজনাপূর্ণ নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে উগান্ডা ৩ উইকেটে হারিয়েছে পাপুয়া নিউ গিনিকে।

নিজেদের প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলতে নেমে দ্বিতীয় ম্যাচেই জয়ের দেখা পেল উগান্ডা। প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের কাছে ১২৫ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছিলো নবাগত উগান্ডা। এদিকে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে প্রথম ম্যাচে ৫ উইকেটে হারের পর এবার উগান্ডার সাথেও জিততে পারলো না পাপুয়া নিউ গিনি।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের গায়ানায় টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের দ্বিতীয় বলে প্রথম উইকেট হারায় পাপুয়া নিউ গিনি। শুরুর ধাক্কা পরবর্তীতে আর সামলে উঠতে পারেনি তারা। উগান্ডার বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের সামনে ১৯ দশমিক ১ ওভারে ৭৭ রানে গুটিয়ে যায় পাপুয়া নিউ গিনি। নিজেদের টি-টোয়েন্টি ইতিহাসে এটিই সর্বনিম্ন রান পাপুয়া নিউ গিনির।

ইনিংসে পাপুয়া নিউ গিনির পক্ষে মাত্র  তিন ব্যাটার দুই অংকের কোটা স্পর্শ করতে সক্ষম হয়েছে । হিরি হিরি সর্বোচ্চ ১৫, লেগা সাইয়াকা ও কিপলিন ডোরিগা ১২ রান করে করেন। এছাড়া অতিরিক্ত থেকে ১৩ রান আসে। উগান্ডার আলপেশ রামজানি, কসমাস কেউতা, জুমা মিয়াগি ও ফ্রাঙ্ক এনসুবুগা ২টি করে উইকেট নেন।

এরমধ্যে ৪৩ বছর বয়সী এনসুবুগা ৪ ওভারে ২ মেডেন ও ৪ রান দিয়ে নেন ২ উইকেট। এতেই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে রেকর্ডের মালিক হয়েছেন এনসুবুগা। বিশ্বকাপের ইতিহাসে সেরা ইকোনমি রেট এখন তার।

৭৮ রানের জবাব দিতে নেমে বিপদে পড়েছিলো উগান্ডাও। তৃতীয় ওভারের মধ্যে দলীয়  ৬ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বসে তারা। এরপর ২৬ রানে পঞ্চম উইকেট পতনে নিজেদের টি-টোয়েন্টি ইতিহাসে সর্বনিম্ন রানে গুটিয়ে যাবার শঙ্কায় পড়ে উগান্ডা। আগের ম্যাচেই আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৫৮ রানে অলআউট হয়ে সর্বনিম্ন স্কোরের লজ্জায় ডুবেছিলো তারা।

কিন্তু ষষ্ঠ উইকেটে ৪৩ বলে ৩৫ রানের জুটি গড়ে উগান্ডাকে সর্বনিম্ন রানের লজ্জার হাত থেকে বাঁচান রিয়াজাত আলি শাহ ও মিয়াগি। দলীয় ৬১ রানে ষষ্ঠ ব্যাটার হিসেবে আউট হন ১৬ বলে ১৩ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলা মিয়াগি।

মিয়াগি ফিরলেও এক প্রান্ত আগলে টেস্ট মেজাজের ব্যাটিংয়ে উগান্ডার জয়ের আশা ধরে রাখেন রিয়াজাত। সপ্তম উইকেটে কেনেথ ওয়াইসওয়াকে নিয়ে ২৫ বলে ১৪ রান যোগ করে উগান্ডাকে জয়ের কাছে নিয়ে যান রিয়াজাত। তবে জয় থেকে ৩ রান দূরে থাকতে আউট হন তিনি। ১টি চারে ৫৬ বলে ধৈর্য্যশীল ব্যাট চালিয়ে ৩৩ রান করেন রিয়াজাত।

রিয়াজাতের আউটের পর দলের বাকী ৩ রান তুলে ১০ বল বাকী থাকতে উগান্ডাকে ঐতিহাসিক জয়ের স্বাদ দেন ওয়াইসওয়া ও অধিনায়ক ব্রায়ান মাসাবা। ওয়াইসওয়া ৭ ও মাসাবা শূণ্য রানে অপরাজিত থাকেন। পাপুয়া নিউ গিনির আলেই নাও ও নরমান ভানুয়া ২টি করে উইকেট নেন। ম্যাচ সেরা হন রিয়াজাত।

বাসস

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

8 + twelve =