প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে থ্রিডি অ্যানিমেশন সিনেমা

২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে ‘হাসিনা: আ ডটারস টেল’ নামের প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ করেছিলেন পিপলু আর খান। এবার প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে নির্মিত হচ্ছে থ্রিডি অ্যানিমেশন সিনেমা। ‘হাসিনা: দি আনটোল্ড স্টোরি’ নামের সিনেমাটি বানাচ্ছেন রাতুল বিশ্বাস। তিনি জানিয়েছেন, সিনেমাটি নির্মিত হবে নাল স্টেশন স্টুডিও থেকে। তত্ত্বাবধানে থাকবে আইসিটি বিভাগ।

ইতিমধ্যে নির্মাতা দেখা করেছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ‌্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সঙ্গে। পরিচালক রাতুল বিশ্বাস জানান, সিনেমার পরিকল্পনা পছন্দ করেছেন মন্ত্রী। আশ্বাস দিয়েছেন সিনেমাটি নির্মাণ করতে সর্বোচ্চ সহায়তা করবে আইসিটি বিভাগ।

হাসিনা: দি আনটোল্ড স্টোরি সিনেমার গল্প শুরু হবে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় থেকে। দেখা যাবে প্রধানমন্ত্রীর ২০৪১ সালের পরিকল্পনা পর্যন্ত। নির্মাতা রাতুল বলেন, ‘এই সিনেমার গল্প আমরা হয়তো সবাই জানি। কিন্তু ভিজ্যুয়ালটা দেখেনি অনেকেই।

১৯৭৫ সালে যখন বঙ্গবন্ধুকে সপরিবার হত্যা করা হলো, সেই সময়টা শেখ হাসিনার কীভাবে কেটেছে। শোককে শক্তিতে পরিণত করে তাঁর দেশে ফিরে আসা, অনেক সংগ্রাম করে পুনরায় দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা, দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে তাঁর ত্যাগ আর সংগ্রামের অনেক জানা-অজানা গল্পগুলো সিনেম্যাটিকভাবে তুলে আনার চেষ্টা করছি।’

নির্মাতা আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে লেখা নানা বই থেকে আমরা চিত্রনাট্য তৈরির চেষ্টা করছি। তবে চিত্রনাট্যটি চূড়ান্ত করতে চাই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে। কারণ, তিনিই সবচেয়ে ভালো জানেন, সেই সময়ে কী ঘটেছিল, কীভাবে ঘটেছিল, কেমন ছিল তাঁর মানসিক অবস্থা।’

সম্প্রতি প্রকাশ করা হয়েছে সিনেমাটির টিজার। সেখানে দেখা গেল, বিমানে করে দেশে ফিরেছেন শেখ হাসিনা। একঝলক দেখাও গেল তাঁকে। টিজারটি প্রকাশের পর থেকেই সব মহলে প্রশংসিত হচ্ছে। এই বিষয়ে রাতুল বলেন, ‘সিনেমাটি নির্মিত হবে উন্নতমানের টেকনোলজি দিয়ে। যেমনটা হয় হলিউডে। সিনেমা দেখে যেন মনে হয়, এটা রিয়েল শুট করা হয়েছে। এখানে থাকবে এআই প্রযুক্তির ব্যবহার। আমরা এমন একটি প্রজেক্ট নির্মাণ করতে চাই, যা দিয়ে আন্তর্জাতিক বাজারে লড়তে পারি। আমাদের প্রধান লক্ষ্য সিনেমাটি দিয়ে অস্কারে ফাইট দেওয়া।’

হাসিনা: দি আনটোল্ড স্টোরি সিনেমার ব্যাপ্তি হবে প্রায় তিন ঘণ্টা। সিনেমাটি ডাবিং করা হবে বাংলা, হিন্দি ও ইংরেজি ভাষায়। পরিকল্পনা অনুযায়ী সব ঠিক থাকলে ২০২৫ সালে প্রেক্ষাগৃহে সিনেমাটি মুক্তি দিতে চান নির্মাতা। সিনেমাটির সহপরিচালক হিসেবে আছেন আরটিবি রুহান, মিউজিকের দায়িত্বে আছেন সালমান জেইম।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

10 − three =