বিকিনি পরে বিমানবন্দরে, ভাইরাল ভিডিও

পরে আছেন অলিভ রংয়ের বিকিনি। কাঁধে ব্যাকপ্যাক। মুখে মাস্ক। মায়ামি এয়ারপোর্টে এক নারীকে এমন বেশে দেখে চমকে উঠেছিলেন আশেপাশের মানুষজন। অনেকে বিষয়টি ফোনে ধারন করেন। পরবর্তীতে সেই ক্লিপ ছড়িয়ে পড়ে নেট দুনিয়ায়।

ভাইরাল হয়ে গিয়েছিল ওই স্বল্পদৈর্ঘ্যের ভিডিও। বিষয়টি দেখে বেশ মজা পেয়েছিলেন নেটিজেনরা। এ প্রসঙ্গে ইনস্টাপাড়ায় এক নেটিজেন রসিকতা করে বলেন, ‘ভাগ্যিস উনি মাস্ক পরেছেন’। অপর নেটিজেনের কথায়, ‘দুপুরে পুল পার্টির পর বিকেল চারটে নাগাদ বিমান থাকলে ওরকম হয়’।

তবে বিষয়টি নিয়ে বক্রোক্তিও করেছেন কেউ কেউ। অনেকে বলেন, ‘স্বল্পবসনাকে বিমানে উঠতে দেওয়াই উচিত কাজ হয়নি’। কেউ আবার ভ্রু কুঁচকে বলেন, ‘কুরুচিকর ওই পোশাকে কেউ বিমানবন্দরে আসে’!

ওই কমেন্টের প্রতিবাদ করেছেন নেটিজেনদের সিংহভাগ। তারা বলছেন, ‘মুখে মাস্ক পরেছেন ওই নারী। তিনি করোনা বিধি মেনেছেন। তাহলে অসুবিধা কোথায়’?

যদিও ওই নারীকে বিমানে উঠতে দেওয়া হয়েছিল কিনা সে বিষয়টি জানা যায়নি। তবে গ্রীষ্মের শুরুতেই সংশ্লিষ্ট বিমানবন্দরের গাইডলাইনে লেখা হয়েছিল, ‘কোনও যাত্রী খালি পায়ে সফর করতে পারবেন না। সঠিক এবং রুচিশীল পোশাক পরা জরুরি’।

যদিও সংশ্লিষ্ট এয়ারলাইন্সের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে ওই নারী আদৌ বিমানের যাত্রী ছিলেন কিনা তাদের জানা নেই। এদিন ওই সংস্থার মুখপাত্র মার্কিন সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, ভিডিয়োটি যে কোনও জায়গায় হতে পারে। নিশ্চিত করে বলা যায় না যে সেটি কোনও এয়ারপোর্টের। কারণ, বিমানবন্দরে কোনও অ্যাভিয়েশন ব্র্যান্ডের প্রতীক দেখা যায়নি। ফলত পৃথিবীর যে কোনও স্থানে ওই ভিডিয়োটি তোলা হয়ে থাকতে পারে। আমরা নিজেদের ফুটেজ খতিয়ে দেখছি। বিকিনি পরিহিত ওই নারী কোনও ফুটেজেই ছিলেন না’।

এই সময়

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

10 − 9 =