বৈদ্যুতিক বিমানের পরীক্ষামূলক উড্ডয়ন গতি ঘণ্টায় ৬২৩ কিমি

‘বিশ্বের দ্রুততম সম্পূর্ণ বিদ্যুৎচালিত বিমান’ তৈরির দাবি করেছে ব্রিটিশ অটোমোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থা রোলস-রয়েস। প্রতিষ্ঠানটির বিশ্বাস, তাদের তৈরি ‘স্পিরিট অব ইনোভেশন’ দুনিয়ার দ্রুততম সম্পূর্ণ বিদ্যুৎচালিত বিমান।

ডার্বিতে অবস্থিত রোলস রয়েসের এয়ারস্পেস সদর দপ্তর বলছে, পরীক্ষামূলক উড্ডয়নে বিমানটির গতি ঘণ্টায় ৬২৩ কিলোমিটার পর্যন্ত উঠেছে। এটি তিনটি ভিন্ন দূরত্ব অতিক্রম করে নতুন বিশ্ব রেকর্ড গড়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। সত্যতা যাচাইয়ের জন্য পরিসংখ্যান বিশ্ব এয়ার স্পোর্টস ফেডারেশনে পাঠানো হয়েছে।

উইল্টশায়ারের আমেসবারির বসকম্ব ডাউনে গত ১৬ নভেম্বর পরীক্ষামূলক ফ্লাইটগুলি পরিচালনা করা হয়। ফ্লাইট অপারেশনের পরিচালক ও পাইলট ফিল ও’ডেল সর্বোচ্চ গতি তোলেন। তিনি বলেন, ‘এটি আমার ক্যারিয়ারের উল্লেখযোগ্য ঘটনা এবং পুরো টিমের জন্য এটি একটি অবিশ্বাস্য অর্জন।’

রোলস-রয়েস বলেছে যে, স্পিরিট অব ইনোভেশন ২০১৭ সালে সিমেন্স ই-এয়ারক্রাফট চালিত এক্সট্রা ৩৩০ এলই অ্যারোব্যাটিক বিমানের করা রেকর্ডের তুলনায় ঘণ্টায় ১৩২ মাইল বেশি দ্রুততম ছিল।

এটি ৯৮৪২ দশমিক ৫২ ফুট উপরে উঠতে দ্রুততম সময় নেওয়ার রেকর্ডটিও ভেঙ্গেছে ৬০ সেকেন্ডের ব্যবধানে। ওই উচ্চতায় উঠতে ২০২ সেকেন্ড সময় লাগতো। বিমানটিতে একটি ৪০০ কেডাব্লিউ বৈদ্যুতিক পাওয়ার ট্রেন ব্যবহার করা হয়েছে- যা একটি ৫৩৫ বিএইচপি সুপারকারের সমান।

রোল-রয়েস বলেছে যে, তারা মহাশূন্যে এ পর্যন্ত যুক্ত করা সবচেয়ে শক্তিশালী প্রোপালশন ব্যাটারি প্যাক যুক্ত করেছে যা দিয়ে একসঙ্গে সাড়ে সাত হাজার ফোন চার্জ করা সম্ভব।

বাংলা ট্রিবিউন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

two × 2 =