মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মবার্ষিকী আজ

‘দাঁড়াও পথিকবর, জন্ম যদি তব/বঙ্গে! তিষ্ঠ ক্ষণকাল! এ সমাধি স্থলে/(জননীর কোলে শিশু লভয়ে যেমতি/বিরাম) মহীর পদে মহা নিদ্রাবৃত/দত্তকুলোদ্ভব কবি শ্রীমধুসূদন!/যশোরে সাগরদাঁড়ি কবতক্ষ-তীরে/জন্মভূমি, জন্মদাতা দত্ত মহামতি/রাজনারায়ণ নামে, জননী জাহ্নবী।’

অবিস্মরণীয় পঙ্‌ক্তিমালায় তিনি নিজেই সমাধিস্থলে তার পরিচয় লিপিবদ্ধ করে গেছেন। মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৮তম জন্মবার্ষিকী আজ। ১৮২৪ সালের ২৫ জানুয়ারি কেশবপুর উপজেলার কপোতাক্ষ নদের তীরে সাগরদাঁড়ি গ্রামের দত্ত পরিবারে তার জন্ম। মৃত্যু কলকাতায় ১৮৭৩ সালের ২৯ জুন।

মাইকেল মধুসূদন দত্ত আমাদের বাংলা কাব্যের অনুপ্রেরণা। ঊনবিংশ শতাব্দীর বাংলার নবজাগরণ সাহিত্যের অন্যতম পুরোধা ব্যক্তিত্ব। বাংলা সাহিত্যে মাইকেল তার বিশাল প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন। ইংরেজির প্রতি অতি মাত্রায় আকর্ষণ তাকে টেনে নিয়ে গিয়েছিল ইংরেজি সাহিত্যের দ্বারপ্রান্তে। তার লেখা ও ইংরেজিতে কথা বলার প্রয়াস দেখে বিস্মিত ইংরেজ জাতি তাকে বলেছিল, ‘নিজের ভাষা নিয়ে লিখলে তুমি আরো সফলতা পেতে।’

বাবা রাজনারায়ণ দত্ত কলকাতায় ওকালতি করতেন। মা জাহ্নবী দেবী।  যশোর জেলার সম্ভ্রান্ত বংশে জন্ম হলেও মধুসূদন হিন্দু ধর্ম ছেড়ে খ্রিষ্টধর্ম গ্রহণ করে ইংরেজি ভাষায় সাহিত্য রচনায় মনোনিবেশ করেন। জীবনের দ্বিতীয় পর্বে মধুসূদন আকৃষ্ট হন নিজের মাতৃভাষার প্রতি। মাইকেল মধুসূদন বাংলা ভাষায় সনেট ও অমিত্রাক্ষর ছন্দের প্রবর্তক।

তার সর্বশ্রেষ্ঠ কীর্তি অমিত্রাক্ষর ছন্দে রামায়ণের উপাখ্যান অবলম্বনে রচিত ‘মেঘনাদবধ কাব্য’ নামক মহাকাব্য। তার উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ : দ্য ক্যাপটিভ লেডি, শর্মিষ্ঠা, বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রোঁ, একেই কি বলে সভ্যতা, তিলোত্তমাসম্ভব কাব্য, বীরাঙ্গনা কাব্য, ব্রজাঙ্গনা কাব্য, চতুর্দশপদী কবিতাবলী, হেকটর বধ ইত্যাদি।

দাম্পত্যজীবন বলতে মধুসূদন রেবেকা ম্যাকটিভিস নামে এক ইংরেজ যুবতীকে বিবাহ করেন। এই বিয়ে সাত বছর স্থায়ী হয়েছিল। রেবেকার গর্ভে মধুসূদনের দুই পুত্র ও দুই কন্যার জন্ম হয়। মাদ্রাজ জীবনের শেষ পর্বে রেবেকার সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ হওয়ার পর এমিলিয়া আঁরিয়েতা সোফিয়া নামে এক ফরাসি তরুণীকে বিয়ে করেন। আঁরিয়েতা মধুসূদনের সারাজীবনের সঙ্গী ছিলেন।

মাইকেল ইংরেজির টানে দেশ ছেড়ে গেলেও ১৮৫৬ সালে মধুসূদন কলকাতায় ফিরে আসেন। পদ্মাবতী নাটক, তিলোত্তমাসম্ভব কাব্য, একেই কি বলে সভ্যতা ও বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রোঁ নামের দুটি প্রহসন, মেঘনাদবধ কাব্য, ব্রজাঙ্গনা কাব্য, কৃষ্ণকুমারী নাটক, বীরাঙ্গনা কাব্য ও চতুর্দশপদী কবিতাবলী রচনা করেন।

রাইজিংবিডি

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

eighteen − 8 =