যে কারণে পঞ্চাশেও অবিবাহিতা টাবু!

গত বৃহস্পতিবার  জীবনের নতুন আরেকটি বছরে পা দিয়েছেন এই নন্দিত টাবু। তবে এই বয়সেও সিঙ্গেল রয়েছেন ‘বিবি নম্বর ওয়ান’খ্যাত এই তারকা! কিন্তু কেন?

সরাসরি বিষয়টির উত্তর না দিলেও এক সাক্ষাৎকারে মজা করে টাবু বলেন, ‘আমি আর অজয় (অভিনেতা অজয় দেবগণ) একে-অপরকে প্রায় ২৫ বছর ধরে চিনি। ও আমার ভাই সমীরের প্রতিবেশী আর ছোটবেলার বন্ধু। আমি যখন ছোট ছিলাম, সমীর আর অজয় আমার সবকিছুতে নজর রাখত। আর ছেলেদের ভয় দেখাত, যাতে তারা আমার সঙ্গে প্রেম না করে। আর এই কারণেই আমার এখনও বিয়ে হয়নি!’

প্রায় চার দশক ধরে বলিউড মাতাচ্ছেন অভিনেত্রী টাবু। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে অসংখ্য সুপারহিট সিনেমা উপহার দিয়েছেন তিনি। ১৯৭১ সালের ৪ নভেম্বর ভারতের হায়দ্রাবাদের একটি মুসলিম পরিবারে টাবুর জন্ম। তার পুরো নাম তাবাসসুম ফাতিমা হাশমি। ছোটবেলাতেই টাবুর বাবা-মায়ের ডিভোর্স হয়ে যায়।

তিনি বিখ্যাত অভিনেত্রী শাবানা আজমির ভাতিজি এবং আশির দশক মাতানো আরেক অভিনেত্রী ফারাহ নাজের ছোট বোন। চলচ্চিত্র পরিবারের হওয়ায় খুব ছোটবেলা থেকেই চলচ্চিত্র জগতের সঙ্গে টাবুর নিবিড় সম্পর্ক।

১৯৮০ সালে ‘বাজার’ সিনেমায় শিশুশিল্পী হিসেবে টাবুর অভিষেক ঘটে। পরবর্তীতে ১৯৮৫ সালে ‘হাম নওজোয়ান’ সিনেমায় তিনি দেব আনন্দের মেয়ে হিসেবে অভিনয় করেন। মূল অভিনেত্রী হিসেবে টাবুর অভিষেক হয় তেলেগু চলচ্চিত্র ‘কুলি নং ওয়ান’-এর মাধ্যমে।

বলিউডে তার প্রথম মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমা ‘প্যাহলা প্যাহলা পেয়ার’ হলেও তিনি মূলত নজরে আসেন ‘বিজয়পথ’ সিনেমার মাধ্যমে।

সব ধরনের সিনেমাতেই প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন টাবু। তিনি যেমন ‘লাইফ অফ পাই’, ‘চাঁদনী বার’, ‘হায়দার’, ‘মকবুল’ কিংবা ‘ফিতুর’-এর মতো ভিন্নধারার সিনেমা করেছেন; তেমনি ‘গোলমাল এগেইন’, ‘বিবি নম্বর ওয়ান’, ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’, ‘হেরা ফেরি’-এর মতো মূলধারার সিনেমাতেও প্রশংসা কামিয়েছেন।

বাংলানিউজ

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

10 + nineteen =