শীতে মোড়া থাকতে থাকতে অভ্যাসটাই যেন বদলে গেছে।

শীত উড়িয়ে শুরু হয়েছে গরমের ঝাপটা। সঙ্গে রয়েছে ধুলোবালি আর মাঝেমধ্যে বৃষ্টির হানা। এই সময়ে বাইরে বের হলে গরম, ঘাম আর ধুলোয় চরম অস্বস্তি তৈরি হয়। এ অবস্থায় স্বস্তি পেতে দরকার উপযোগী সাজ-পোশাক। তাহলে কেমন হতে পারে সময়-উপযোগী রূপকাহন?

তীব্র রোদের তাপে, ঘামে আর ধুলোয় মাখামাখি হয়ে ভোগেন দারুণ অস্বস্তিতে! তাই ঘর থেকে বের হওয়ার আগেই স্বচ্ছন্দদায়ক পোশাকটি বেছে নিন। এ সময়ের পোশাক পাতলা সুতি হলেই ভালো। এখনকার পোশাক একটু হালকা-পাতলা হলে অস্বস্তি কম লাগে। এ ছাড়া একটু ঢিলেঢালা পোশাক হলে গরমে হাঁসফাঁস লাগবে না। বর্তমানে ক্যাজুয়াল পোশাক হিসেবে মেয়েরা নানারকম আরামদায়ক ফেব্রিকের কুর্তি পরছেন। এগুলো দেখতে যেমন সুন্দর পরতেও আরামদায়ক। এর সঙ্গে টাইডস বা প্লাজো বেশ মানিয়ে যায়। এ ধরনের পোশাক যেমন ট্রেন্ডি তেমন আরামদায়ক। কেউ কেউ এ সময়টাতে শাড়ি বেছে নেন। শাড়ি পরলেও তাঁতের শাড়িতেই আরাম পাবেন বেশি। তবে দীর্ঘকাল ধরে বাঙালি নারীর পছন্দের একটি জায়গা দখল করে আছে পাতলা জর্জেটের প্রিন্টেড শাড়ি। নানা রঙের নজরকাড়া এসব শাড়ি গরমের দিনে পরতে দারুণ আরামদায়ক। ঝামেলাহীনভাবে বারবার একই শাড়ি পরা যায়। বারবার ধোয়া বা আয়রন করার ঝামেলাও থাকে না। পরার সময় দ্রুত সেট হয়ে যায়। তাই অতিরিক্ত সময়ও নষ্ট হয় না। মূলত গরম উপযোগী পোশাক মানেই ঝামেলাহীন। এ ধরনের পোশাকে দ্রুত রেডি হওয়া ও আরাম ধরে রাখা সম্ভব।

♦ এবার আসা যাক মেকআপের বিষয়ে, গরমের সময় মেকআপ করতে গেলে প্রথমেই মনে পড়ে ঘামের কথা। সঙ্গে ধুলোবালি তো আছেই। ত্বক তৈলাক্ত প্রকৃতির হলে তো আরও সমস্যা। রোদে গেলেই মুখটা কেমন লালচে আর তেলতেলে হয়ে যায়। এটা খুবই বিরক্তিকর। তাহলে উপায় কী? এ সময় বাইরে যাওয়ার আগে খুব হালকা ও ন্যাচারাল মেকআপ করাই উচিত। খুব হালকা মেকআপেও কিন্তু নিজেকে আকর্ষণীয় করে তোলা যায়। প্রথমে মুখটা পরিষ্কার করে ধুয়ে এক টুকরো বরফ ঘষে নিন। তারপর লাগান সানস্ক্রিন। সানস্ক্রিন বাইরে যাওয়ার ১৫-২০ মিনিট আগেই লাগাতে হয়। এরপর বেইজ মেকআপ করুন। এ সময়ে বেইজের ক্ষেত্রে ভারী ফাউন্ডেশন যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন। গরমে লিকুইড নয় বরং ম্যাট ফাউন্ডেশন দিয়ে বেইজ করুন। এতে মেকআপ সহজে গলবে না।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

16 − 2 =