সাবাশ বাংলাদেশ অফুরন্ত ভালোবাসা

সালেক সুফী

ব্যাটসম্যানদের মৃত্যুকূপ কঠিন উইকেটে যখনি বাংলাদেশ স্কোর ১০০ পেরিয়েছিল অনেকটাই নিশ্চিত ছিলাম বাংলাদেশের তুখোড় বোলিং ইউনিট স্মার্ট বোলিং করে ম্যাচটি জিতে নিবে। অনেকটা নিশ্চিত হয়েই কোরবানির ঈদের নামাজ পড়ে শশুর পরিবারের পারিবারিক গোরস্থান জেয়ারত করে ফিরে দেখি বাংলাদেশের ১০৬ রানের জবাবে ১৮ম ওভারে নেপাল ধুঁকছে ৮৫/৭। বল করছে কাটার মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমান। যে ধরণের উইকেটে বিশ্বসেরা ব্যাটসম্যানরা হাসফাঁস করে ফিজকে মোকাবিলা করতে সেখানে নিশ্চিত ছিলাম পারবে না নেপাল। দিপেন্দ্রা সিংহ তৈরির উইকেট তুলে নিলো ফিজ ৮৫/৮। শেষ ওভারে জিততে হলে ২২ রান প্রয়োজন। বোলিং করতে আসলো বাংলাদেশের বিশ্বসেরা চৌকষ খেলোয়াড় সাকিব আল হাসান। পর পর দুই বলে শেষ দুটি উইকেট তুলে নিয়ে বাংলাদেশকে বিজয় উল্লাসে ভাসালো সাকিব।  নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম বারের পর তিন ম্যাচ জিতে পরবর্তী রাউন্ডে পৌঁছে গেলো বাংলাদেশ। খেলতে হবে অস্ট্রেলিয়া, ভারত, আফগানিস্তানের সঙ্গে দ্বিতীয় রাউন্ড। বিশ্ব জোড়া বাংলাদেশিরা পেলো ঈদ উপহার।

সেন্ট ভিনসেন্টের এই উইকেটটি যেন বাস্টম্যানদের জন্য মৃত্যুকূপ। টস জয় করে বাংলাদেশ মোটেও সুবিধা করতে পারেনি দারুন সুইং, সিম হতে থাকা উইকেটে। এমনিতেই নড়বড়ে টপ অর্ডার, আজ মিডল অর্ডার সুবিধা করতে পারলো না। সাকিব (১৭), মাহমুদুল্লাহ (১৩), জাকের আলী হাল ধরার চেষ্টা করেও পারেনি। শেষ দিকে রিশাদ (১৩) ,তাসকিন (১২) রান করায় দলের স্কোর ১০০ পেরিয়ে যায়। উইকেটের সুবিধা কাজে লাগিয়ে নেপালের সবাই ভালো বোলিং করে। ফিল্ডিং ছিল দেখার মত। আগের ম্যাচে শক্তিশালী দক্ষিণ আফ্রিকাকেও একই ভাবে কোনঠাসা করেছিল নেপাল। সোমপাল কামি (২/১৩), সন্দীপ লামিচান (২/১৭), রোহিত  পাউডেল  (২/২০) এবং দিপেন্দ্রা সিংহ আইরি  (২/২২) বাংলাদেশকে আদৌ স্বস্তি দেয়নি। তবে উইকেটের প্রকৃতি দেখে অনেকটা নিশ্চিত ছিলাম বাংলাদেশের তুখোড় বোলিংয়ের বিরুদ্ধে এই রান তাড়া করে ম্যাচ জয় সহজ হবে না নেপালের জন্য। হেরে গাছে নেপাল। কিন্তু এই টুর্নামেন্টে দারুন খেলে ক্রিকেট অনুরাগীদের মনে নেপাল ক্রিকেটের উজ্জ্বল আগামী দিনের স্বপ্ন জাগিয়েছে।

যাক সেসব কথা বাংলাদেশ দ্বিতীয় রাউন্ডে পৌঁছে গাছে। ব্যাটিং নিয়ে বাংলাদেশের দুৰ্ভাৱনা কিন্তু রয়েই গেছে। দ্বিতীয় রাউন্ডে অস্ট্রেলিয়া, ভারত, আফগানিস্তান সবার রয়েছে শক্তিশালী বোলিং ইউনিট। লিটন, শান্ত অনুজ্জ্বল। তরুণ তানজিদ তামিম কিছুটা অস্থির প্রকৃতির। বাংলাদেশ দ্বিতীয় রাউন্ডে কিছু করতে হলে ব্যাটসম্যানদের ঘুরে দাঁড়াতে হবে। উইকেট যত কঠিন হোক ১৬০-১৭০ রান করতে না পারলে একটি ম্যাচেও জয় পাওয়া কঠিন হতে পারে।

শুভ কামনা বাংলাদেশ। আশা করি সামর্থের সবটুকু দিয়ে লড়াই করবে বাংলাদেশ। ব্যাটসম্যানরা ভালো পুঁজি দিলে বোলিং ইউনিট কিন্তু কঠিন গ্রুপে কিছু জয় এনে দিবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

two + 20 =