সিনেমা হলে ঋণ সুবিধা বেড়ে ১০ কোটি হলো

২০২০ সালে অক্টোবরে তথ্যমন্ত্রী জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তহবিল গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন। যার পরিমাণ ১ হাজার কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংক এ বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে এ তহবিল গঠনের কথা জানায়। যেখানে ঋণের সর্বোচ্চ সীমা জানানো হয়, ৫ কোটি টাকা। বৃহস্পতিবার  জারি করা এক প্রজ্ঞাপনে বাংলাদেশ ব্যাংক এ সীমা বাড়িয়ে করেছে ১০ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগের মহাব্যবস্থাপক মাকসুদা বেগম স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনটিতে বলা হয়, ১৪ ফেব্রুয়ারি জারি করা প্রজ্ঞাপনের ৪ নং অনুচ্ছেদে বলা হয়েছিলো, কোনো সিনেমা হলের বিপরীতে ৫ কোটি টাকার বেশি ঋণের পরিমাণ ৫ কোটি টাকার বেশি হবে না। ঋণের সর্বোচ্চ ব্যবহারের জন্য আগের প্রজ্ঞাপনের ৪ নং অনুচ্ছেদ প্রতিস্থাপন করা হলো।

৯ ডিসেম্বর জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, নতুন সিনেমা হল নির্মাণ এবং বিদ্যমান সিনেমা হল সংস্কার ও আধুনিকায়নের ক্ষেত্রে অত্র স্কীমের আওতায় সর্বোচ্চ ১০ কোটি টাকা ঋণ সুবিধা পাওয়া যাবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন এ প্রজ্ঞাপনকে স্বাগত জানিয়েছে সিনেমা হল মালিকদের সংগঠন ‘চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতি’। সমিতির নেতারা  বলেছেন, আমরা সরকারের কাছে বহুদিন ধরে দাবি জানিয়ে আসছিলাম ঋণ সীমা ১০ কোটি করতে। আমরা কৃতজ্ঞ আমাদের দাবি মেনে নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি আরও দুটি দাবি ছিলো এ ঋণের ব্যাপারে। এক. সুদের হার সাড়ে ৪ শতাংশ থেকে কমিয়ে সর্বোচ্চ ৩ শতাংশ করা। দুই. ঋণ পরিশোধের সময় ৮ বছর থেকে বাড়িয়ে ১২ বছর করা। এ দাবিগুলোও সরকার বিবেচনা করবে বলে আমাদের বিশ্বাস।

এদিকে প্রযোজক সমিতির নেতা জাহিদ হোসেন জানিয়েছেন, সিনেমা হল মালিকদের সুবিধার্থে এক শ থেকে দুই শ আসনের সিনেপ্লেক্স নির্মাণের জন্য ‘প্রজেক্ট প্রোফাইল’ প্রযোজক ও  পরিবেশক সমিতি উদ্যোগ নিয়ে তৈরি করেছে। আগ্রহীরা সমিতির বিএফডিসিতে অবস্থিত বিশ্রাম কক্ষ কিংবা সমিতির অফিস থেকে সংগ্রহ করতে পারবেন।

সারাবাংলা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

four × one =