স্মৃতিতে হুমায়ুন ফরীদি

প্রখ্যাত অভিনেতা হুমায়ুন ফরীদির জন্মদিন উপলক্ষে বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম। তাঁকে নিয়ে প্রকাশ করছে বিশেষ স্মারকগ্রন্থ। ‘হুমায়ুন ফরীদি—সাধারণ এক অসাধারণ’ নামের বইটির সম্পাদনা করেছেন রেজাউর রহমান এজাজ। জানা গেছে, হুমায়ুন ফরীদির দীর্ঘদিনের সহকর্মী ও কাছের মানুষের লেখায় সমৃদ্ধ হয়েছে বইটি। চ্যানেল আইয়ের ছাদবারান্দায় আজ সন্ধ্যা ৭টায় বইটির প্রকাশনা উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে বাবাকে নিয়ে স্মৃতিচারণা করবেন হুমায়ুন ফরীদির মেয়ে শারারাত ইসলাম দেবযানী। আরও থাকবেন ইমদাদুল হক মিলন, পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়, নাসির উদ্দিন ইউসুফ, শিমুল ইউসুফ, আফজাল হোসেন, মামুনুর রশীদ, সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, শুভাশীষ ভৌমিক, আনু মুহাম্মদসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা। এ ছাড়া চ্যানেল আইয়ে আজ দুপুর সাড়ে ১২টায় হুমায়ুন ফরীদিকে ঘিরে প্রচারিত হবে বিশেষ তারকাকথন। অনন্যা রুমার প্রযোজনায় এতে হাজির হবেন অভিনেতা আল মনসুর ও শহীদুজ্জামান সেলিম। ফরীদির সঙ্গে কাটানো স্মৃতি, তাঁর অভিনয়জীবন—নানা দিকে আলোকপাত করবেন এ দুই অভিনেতা। এ ছাড়া আর্কাইভ থেকে ফরীদির পুরোনো সাক্ষাৎকারও প্রচার করা হবে আজকের তারকাকথনে।

হুমায়ুন ফরীদির জন্ম ২৯ মে, ১৯৫২; ঢাকার নারিন্দায়। বাবা এ টি এম নুরুল ইসলাম ছিলেন জুরিবোর্ডের কর্মকর্তা। বাবার চাকরির সুবাদে বিভিন্ন জেলায় থেকেছেন ফরীদি। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় বিশিষ্ট নাট্যকার সেলিম আল দীনের সংস্পর্শে আসেন। জড়িয়ে পড়েন মঞ্চনাটকের সঙ্গে। মঞ্চে তাঁর সু-অভিনীত নাটকের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘শকুন্তলা’, ‘ফণীমনসা’, ‘কীত্তনখোলা’, ‘মুন্তাসির ফ্যান্টাসি’, ‘কেরামত মঙ্গল’ প্রভৃতি। ১৯৯০ সালে স্বনির্দেশিত ‘ভূত’ নাটক দিয়ে শেষ হয় ফরীদির ঢাকা থিয়েটারের জীবন।

নব্বইয়ের গোড়া থেকেই হুমায়ুন ফরীদির বড় পর্দার পথচলা শুরু হয়। বাণিজ্যিক আর বিকল্প ধারা মিলিয়ে প্রায় ২৫০টি সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি। তাঁর অভিনীত টিভি নাটকের সংখ্যাও কম নয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

eighteen − 12 =