শুরু হলো শাটার লাইট ৫-এর আলোকচিত্র প্রদর্শনী উৎসব

‘সুন্দর আগামীর প্রত্যাশায়’ স্লোগানে হেল্প দ্য ফিউচার (এইচটিএফ) এর আয়োজনে ২৮ মার্চ সোমবার ঢাকা আগারগাঁও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে শুরু হয়েছে আলোকচিত্র প্রদর্শনী উৎসব ‘শাটার লাইট সিজন ৫’। চলবে ৩০ মার্চ বুধবার পর্যন্ত। সোমবার দুপুর ২টায় ৩দিন ব্যাপী এইআলোকচিত্র প্রদর্শনী উৎসবের উদ্বোধন করেন সাবেক নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান এমপি।

প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সাইফুল্লাহ খালেদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শাজাহান খান বলেন, এই উৎসবে না আসলে আমি জানতে পারতাম না ফটোগ্রাফাররা এতো ভালো ছবি তুলে। তাদের তোলা ছবি দেখে আমি মুগ্ধ হয়েছি। ছবি দেখে বিখ্যাত চিত্রশিল্পী জয়নুল আবেদীনের কথা মনে পড়েছে। তরুণদের এই আয়োজন অব্যাহত থাকুক আর সফল হোক।

শিশু, কিশোর ও তরুণদের দক্ষতা বৃদ্ধি ও সামাজিক উন্নয়ন মূলক কাজ করে থাকে স্বেচ্ছাসেবী এই সংগঠন। এর ধারাবাহিকতায় এবার ৫ম বারের মতো আলোকচিত্র প্রদর্শনী উৎসব  আয়োজন করেছে হেল্প দ্য ফিউচার (এইচটিএফ)। এবার সারা দেশ থেকে ছবি জমা পড়েছিল সাড়ে ৪ হাজার। এর মধ্য থেকে প্রদর্শনীর জন্য নির্বাচিত হয়েছে ৬০টি ছবি। শিশু-কিশোদের জন্য ছবি জমা দেওয়ার বিভাগ ছিল ‘উন্মুক্ত’। প্রতিযোগিতার অংগ্রহণের জন্য সব ধরনের ছবি জমা দিতে পেরেছে তারা। তরুণদের জন্য ছবি জমা দেওয়ার বিভাগ ছিল ‘জলবায়ূ পরিবর্তন ও করোনা’। আর এই দুটি বিভাগ থেকে পুরস্কার পাবে মোট ৬ জন আলোকচিত্রী। পুরস্কার হিসেবে থাকছে ক্রেস্ট, সনদ ও আর্থিক প্রণোদনা।আগারগাঁও  মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে ৫ নম্বর গ্যালারিতে এই আলোকচিত্র উৎসবটির প্রদর্শনী সবার জন্য উন্মুক্ত।

পুরস্কারের জন্য ছবি নির্বাচিত করার জন্য নির্বাচক হিসেবে আছেন ফ্রিল্যান্স ফটোগ্রাফার প্রণব ঘোষ, ফ্রিল্যান্স ফটোগ্রাফার জয়িতা তৃষা, নারায়াণগঞ্জ ফটোগ্রাফি ক্লাব-এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও সভাপতি জয় কে রায় চৌধুরী ও প্রথম আলো পত্রিকার চিত্র সাংবাদিক সাবিনা ইয়াসমিন।

হেল্প দ্য ফিউচার (এইচটিএফ) এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সাইফুল্লাহ খালেদ বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের মাঝে ফটোগ্রাফির প্রতি আগ্রাহ তৈরি ও দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য আমরা প্রতি বছর উৎসবটির আয়োজন করে থাকি। করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় গত বছর আমরা আয়োজন করতে পারিনি। শিক্ষার্থীদের মাঝে ইতিবাচক মনোভাব, দেশপ্রেমের প্রতি উদ্ধুদ্ধ করতে আমরা এ আয়োজন অব্যাহত রাখবো। এবার দুটি বিভাগে প্রতিযোগিতার বিষয় হিসেবে ধরা হয়েছে এর মধ্যে দেশের জলবায়ূ পরিবর্তন ও করোনা পরিস্থিতির উপর একটি বিভাগ রাখা হয়েছে। আশা রাখি এই উৎসবটির মাধ্যমে অনেক তরুণ ফটোগ্রাফার উঠে আসবে, ছবির মাধ্যমে আগামী দিনে সমাজ পরিবর্তনে তারাও ভূমিকা রাখবে।’

আগামী ৩০ মার্চ উৎসবটির শেষ দিন পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন সাবেক সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি।

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

nineteen − 7 =