সহযোগিতা বাড়াতে ফ্রেমওয়ার্ক চুক্তি করবে ওপেক ফান্ড

অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর নেতৃত্বে বাংলাদেশের উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় অনুষ্ঠিত অর্গানাইজেশন অব দ্য পেট্রোলিয়াম এক্সপোর্টিং কান্ট্রিজ (ওপেক) ফান্ড ডেভলপমেন্ট ফোরামের বৈঠকে যোগদান করেছেন। এসময় অর্থমন্ত্রী ফোরামের বিভিন্ন অধিবেশনে অংশগ্রহণের পাশাপাশি সাইডলাইন মিটিংয়ে ওপেক ফান্ডের প্রেসিডেন্ট ড. আবদুল হামিদ আল খালিফার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎকালে হামিদ আল খালিফা বাংলাদেশকে বৃহত্তর সহযোগিতার লক্ষ্যে ৩ থেকে ৫ বছরের জন্য ফ্রেমওয়ার্ক চুক্তি স্বাক্ষর করবেন বলে জানান।

অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে ওপেক ফান্ডের প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশের সাম্প্রতিক উন্নয়নে বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, বিশ্বস্ত উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে ওপেক তহবিল বাংলাদেশের জন্য উন্নয়ন সহায়তা অব্যশই বৃদ্ধি করবে। এসময় অর্থমন্ত্রীর দেয়া ফ্রেমওয়ার্ক চুক্তির ধারণা তিনি গ্রহণ করেন এবং উল্লেখ করেন ওপেক বৃহত্তর সহযোগিতার জন্য ৩ থেকে ৫ বছরের জন্য ফ্রেমওয়ার্ক চুক্তি স্বাক্ষর করবে।

অর্থমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলে ছিলেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খান, অস্ট্রিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আসাদ আলম সিয়াম এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মিরানা মাহরুখ রয়েছেন। অর্থমন্ত্রী ভিয়েনা সফরশেষে গতকাল দেশে ফিরেছেন।

অর্থমন্ত্রী বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ওপেক তহবিল থেকে ৩২টি প্রকল্পের অনুকূলে ৬৯৩ দশমিক ৬১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার প্রদান করায় হামিদ আল খালিফাকে ধন্যবাদ জানান। বিশেষ করে কোভিলকালীন সময়ে বাজেট সহায়তা প্রদান করার কথা তিনি স্বরণ করেন।

অর্থমন্ত্রী স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার প্রচেষ্টায় আরও বেশি সহোযোগিতা প্রদান করে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য ওপেক ফান্ড কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুরোধ জানান। ভিয়েনায় অর্থমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল ওপেক ফান্ড প্রাইভেট সেক্টর এর ২৫তম বার্ষিকীতে যোগদান করেন।

এছাড়া অর্থমন্ত্রী কুয়েত ফান্ড ফর আরব ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট (কেএফএইডি) এর ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক ওয়ালিদ আল বাহারের সাথে সাক্ষাৎ করেন। তিনি কেএফএইডির অব্যাহত সহায়তার প্রশংসা করে আগামীতে এই সহায়তা আরও বাড়ানোর অনুরোধ করেন।

ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক বাংলাদেশে সরকারিখাতের পাশাপাশি বেসরকারিখাতে সহায়তা প্রদানের আগ্রহ প্রকাশ করেন। বৈঠকের পর বাংলাদেশ সরকার এবং কেএফএইডির মধ্যে খুলনা জেলায় চুনকুড়ি নদীর উপর চুনকুড়ি সেতু প্রকল্পের জন্য একটি ঋণচুক্তি স্বাক্ষর হয়। প্রকল্পে মোট ব্যয় হবে ৮৬.৯১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার, যার মধ্যে ৪২.২০ মিলিয়ন কেএফএইডির এবং ৩০ মিলিয়ন দেবে আবুধাবি ফান্ড ফর ডেভেলপমেন্ট। প্রকল্পটির লক্ষ্য হচ্ছে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন বৃদ্ধি করা এবং রাজধানী ঢাকার সাথে এই অঞ্চলের সরাসরি সড়ক যোগাযোগের মাধ্যমে যাত্রী ও মালবাহী যানবাহন চলাচল সহজ করা।

বাসস

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

20 + fifteen =