ওয়েস্ট ইন্ডিজকে বিদায় করে সেমিফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকা

স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজকে বিদায় করে সুপার এইটে গ্রুপ-২ থেকে দ্বিতীয় ও শেষ দল হিসেবে সেমিফাইনালে উঠেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। আজ সকালে অলিখিত কোয়ার্টার ফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকা বৃষ্টি আইনে ৩ উইকেটে হারিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। এই জয়ে এই গ্রুপে ৩ ম্যাচে ৩ জয়ে পূর্ণ ৬ পয়েন্ট নিয়ে সেমিতে উঠে প্রোটিয়ারা। ৩ ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় দল হিসেবে গতরাতেই সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছিলো ইংল্যান্ড। ৩ ম্যাচে ২ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তৃতীয় স্থানে থাকায় সুপার এইট থেকে বিশ্বকাপ শেষ করলো ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ২০১৬ সালের পর কোন আসরেই সেমিফাইনালে খেলতে পারেনি ক্যারিবীয়রা।

অ্যান্টিগায় টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে নেমে ৫ রানে ২ উইকেট হারিয়ে শুরুতেই চাপে পড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শাই হোপ শূন্য ও নিকোলাস পুরান ১ রানে আউট হন। তৃতীয় উইকেটে ৬৫ বলে ৮১ রানের জুটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে লড়াইয়ে ফেরান এবারের আসরে প্রথম খেলতে নামা কাইল মায়ার্স ও রোস্টন চেজ। এই জুটি গড়ার পথে তিনটি ক্যাচ ফেলেন দক্ষিণ আফ্রিকান ফিল্ডাররা। ১২তম ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকার স্পিনার তাবরাইজ শামসির বলে আউট হন ৩টি চার ও ২টি ছক্কায় ৩৫ রান করা মায়ার্স।

১২তম ওভারে দলীয় ৮৬ রানে মায়ার্স ফেরার পর বিপদ বাড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারালে বড় সংগ্রহ পায়নি ক্যারিবীয়রা। ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৩৫ রান পায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ৪২ বল খেলে ৩টি চার ও ২টি ছক্কায় দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫২ রান করেন চেজ। শেষদিকে আন্দ্রে রাসেল ২টি ছক্কায় ৯ বলে ১৫ ও আলজারি জোসেফ ৭ বলে ১টি ছক্কায় অপরাজিত ১১ রান করেন। দক্ষিণ আফ্রিকার শামসি ২৭ রানে ৩ উইকেট নেন। এবারের বিশ্বকাপে ৬২টি ছক্কা মেরেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের খেলোয়াড়রা। বিশ্বকাপের এক আসরে কোন দলের সবচেয়ে বেশি ছক্কা মারার রেকর্ড এটি।

১৩৬ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে দ্বিতীয় ওভারে জোড়া উইকেট হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা। রেজা হেনড্রিক্সকে শূন্য ও কুইন্টন ডি কককে ১২ রানে শিকার করেন পেসার আন্দ্রে রাসেল। ২ ওভারে ২ উইকেটে ১৫ রান পায় দক্ষিণ আফ্রিকা। এরপর বৃষ্টিতে প্রায় সোয়া এক ঘণ্টা বন্ধ হয় খেলা। এতে ১৭ ওভারে ১২৩ রানের নতুন টার্গেট পায় দক্ষিণ আফ্রিকা।

খেলার শুরুর পর ষষ্ঠ ও অষ্টম ওভারে ২ উইকেট শিকার করে দক্ষিণ আফ্রিকাকে চাপে ফেলে দেন আলজারি জোসেফ। দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক আইডেন মার্করাম ১৮ ও হেনরিচ ক্লাসেন ২২ রানে আউট হন।৭৭ রানে ৪ উইকেট পতনের পর ক্রিজে টিকে থাকতে সাবধানী হয়ে পড়েন ডেভিড মিলার। ১৪ বল খেলে মাত্র ৪ রান করে চেজের বলে বোল্ড হন মিলার।

মিলার যখন আউট হন তখন ৫ উইকেট হাতে নিয়ে ৩২ বলে ৩০ রান প্রয়োজন পড়ে দক্ষিণ আফ্রিকার। এরপর ট্রিস্টান স্টাবস ২৭ বলে ২৯ রান করে চেজের দ্বিতীয় শিকার হলে সাময়িক  ম্যাচে ফিরে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শেষ ২ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকার ১৩ রানের প্রয়োজনে, ১৬তম ওভারের দ্বিতীয় বলে কেশব মহারাজকে শিকার করেন চেজ। ঐ অবস্থায় ম্যাচে টান-টান উত্তেজনা।

১৬তম ওভার থেকে ৮ রান এলে, শেষ ওভারে ৫ রান দরকার পড়ে দক্ষিণ আফ্রিকার। কিন্তু পেসার ওবেড ম্যাককয়ের করা ১৭তম ওভারের প্রথম বলে ছক্কা মেরে ২০১৪ সালের পর দক্ষিণ আফ্রিকাকে প্রথমবার সেমিফাইনালে তুলেন মার্কো জানসেন। ৭ উইকেটে ১২৪ রান করে প্রোটিয়ারা। ১টি করে চার-ছক্কায় ১৪ বলে অপরাজিত ২১ রান করেন জানসেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের চেজ ১২ রানে ৩টি, রাসেল-জোসেফ ২টি করে উইকেট নেন। ম্যাচ সেরা হন শামসি।

বাসস

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

one × 2 =