জয়ের ধারায় দক্ষিণ আফ্রিকা

সালেক সুফী

টাইট ম্যাচে জয়ের ধারা অব্যাহত রেখে সেমি ফাইনালের দুয়ারে কড়া নাড়তে শুরু করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা।  গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশ এবং নেপালের সঙ্গে সামান্য ব্যাবধানে জয়ের পর গ্রুপ অফ এইটের দুটি টাইট ম্যাচ জিতে প্রথম দল হিসাবে সেমি ফাইনালের দুয়ার প্রান্তে পৌঁছে গেছে চিরদিনের চোকার হিসাবে চিহ্নিত প্রোটিয়ানস।

আজ ছিল গ্রুপের ওপর ফেভারিট দল ইংল্যান্ডের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ খেলা। প্রথমে ব্যাটিং করে কুইন্টন ডি কক (৩৮ বলে ৬৫) এবং ডেভিড মিলারের (২৮ বলে ৪৩) মারকুটে বোলিংয়ের কল্যানে ১৬৩/৬ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ স্কোর করেছিল প্রোটিয়ান্সরা।

কেশব মহারাজ (২/২৫) ,কাগিসো রাবাদার  (২/৩২) সঙ্গে বার্টসম্যান, নর্টজের টাইট বোলিং এবং দলের তুখোড় ফিল্ডিং ইংল্যান্ড দলের ইনিংস ১৫৬/৬ সীমিত রাখে। ৭ রানের জয় দিয়ে বলাই যায় সেমি ফাইনালের দরজা খুলে একপা রেখে দিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

পিছনে ফিরে তাকালে দেখা যাবে বাংলাদেশ, নেপালের বিরুদ্ধে দুটি ম্যাচে ব্যাটিং ধস নামায়  স্বল্প পুঁজি নিয়েও সামান্য ব্যাবধানে অবিশ্বাস্য জয় নিয়ে গ্রুপ অফ এইট রাউন্ডে এসেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। গ্রুপ পর্বের দুটি ম্যাচেই দেখলাম সেরা ফর্মে ফিরেছে টি ২০ ফরম্যাটের দুনিয়া কাঁপানো ব্যাটসম্যান কুইন্টন ডি কক।  সাথে কখনও আড্রিয়ান মারকরাম, কখনো ডেভিড মিলার হাত মেলানোয় দক্ষিণ আফ্রিকা জয়ের ধারায় আছে। বরাবরের মতো চোকার ভূমিকায় ফিরে না গেলে দক্ষিণ আফ্রিকা সেমি ফাইনাল বাধা পেরিয়ে ফাইনাল খেললেও বিস্ময়ের কিছু থাকবে না।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

1 × five =