আগামী কাল শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ মিশন

সালেক সুফী

ওয়েস্ট ইন্ডিজ, যুক্তরাষ্ট্রে জমে উঠেছে রঙে রঙে রঙিন টি ২০ বিশ্বকাপ ক্রিকেট। কাল অন্যতম স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্র টূর্নামেন্টের অন্যতম ফেভারিট পাকিস্তান দলকে হারিয়ে চমক সৃষ্টি করেছে। টি ২০ ক্রিকেটে বড় দোল ছোট দল বলে কিছু নেই নিদৃষ্ট দিনে ছন্দে থাকা যে কোনো দল অন্য দলকে হারিয়ে দিতে পারে। আমাদের দেশ বাংলাদেশ আগামী কাল শ্রীলংকার বিরুদ্ধে খেলা দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে। শ্রীলংকা কিন্তু ইতিমধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে বিশাল ব্যাবধানে হেরে গেছে। বাংলাদেশ প্রথম রাউন্ড থেকে গ্রুপ অফ এইটে উন্নীত হতে হলে কাল জয়ী হওয়া ছাড়া বিকল্প নেই। জয় দিয়ে মিশন শুরু হলে বাংলাদেশ আত্মবিশ্বাস নিয়ে ঘুরে দাঁড়াবে। গতিময়তা সৃষ্টি হলে বাংলাদেশ অবশ্যই বিজনেস রাউন্ডে উত্তীর্ণ হওয়ার যোগ্যতা রাখে। জানি বাংলাদেশ দলের সাম্প্রতিক ছন্নছাড়া অবস্থা নিয়ে অনেকেই উৎবিঘ্ন। কিন্তু আমরা যারা বাংলাদেশ ক্রিকেট এবং বিশ্ব ক্রিকেট নিয়ে বিশ্লেষণ করি তারা বিশ্বাস করি কাল জয় পেলেই বদলে যাবে বাংলাদেশ।

আবারো বলছি বিশ্বকাপ ফুটবলের সময় আবেগী বাংলাদেশিরা যেমন প্রিয় দলগুলোর পতাকা দিয়ে দেশের পথ ঘাট প্রান্তর ছেয়ে ফেলে টি ২০ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ, অথচ কোথাও বাংলাদেশের পতাকা দেখছি না। জানি বাংলাদেশ থেকে বিশাল মিডিয়া বহর যুক্তরাষ্ট্র ওয়েস্ট ইন্ডিজে গাছে।  যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্টেট থেকে প্রবাসী বাংলাদেশিরা বিশেষত আমাদের যুগের বাংলাদেশী ক্রিকেটাররা সমবেত হয়েছেন। আমি নিশ্চিত নিজেদের সেরাটা দিয়ে স্মার্ট ক্রিকেট খেললে বাংলাদেশ সবার আবেগের মূল্য দিতে পারবে।

খেলাটি হবে দিবা রাত্রির। সুযোগ পেলে বাংলাদেশের উচিত হবে বোলিং করা। উইকেটের আচরণ না বুঝে প্রথম ব্যাটিং করলে বিপদে পড়তে পারে বাংলাদেশের ব্যাটিং। আমি ফর্ম হীন লিটনকে তানজিদ তামিমের সঙ্গে ইনিংস সূচনায় দেখতে চাই। লেফট রাইট কম্বিনেশন ক্লিক করলে বাংলাদেশের ব্যাটিং গতি পাবে।  পরিস্থিতি বিবেচনা করে আমি বর্তমান বাংলাদেশ দলে থাকা একমাত্র ইনফর্ম ব্যাটসম্যান মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকে ৩ নম্বর পজিশনে খেলানোর সুযোগ দিতে চাই। তবে সেটি নির্ভর করবে যদি ওপেনিং জুটি ৪০-৫০ রানের একটি সূচনা দিতে পারে। সেই ক্ষেত্রে চার পাঁচ ছয়ে শান্ত, তাওহীদ হৃদয় এবং সাকিব দলের স্কোর ১৭০-১৮০ নিয়ে যেতে পারবে। জাকির অনিক, রিশাদ শেষ দিকে দ্রুত কিছু রান তুলে  চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়তে পারবে।

তাসকিন ম্যাচ ফিট কিনা জানিনা, শরিফুল অনিশ্চিত, এমতাবস্থায় পেস আক্রমণ কিছুটা দুর্বল হয়ে পড়েছে। মূল ভরসা কাটার মাস্টার মুতাফিজ একমাত্র ভরসা সঙ্গে আছে তানজিম তামিম। সাকিবের স্মার্ট বোলিং আর রিশাদের ভেলকি কতটা কাজে লাগবে সেটি দেখার অপেক্ষা। আমি এই দলে সৌম্যকে মূল একাদশে খেলানোর সুযোগ দেখি না।

শ্রীলংকা চেনা প্রতিপক্ষ। প্রথম ম্যাচে আফ্রিকা দলের বিরুদ্ধে হেরে জয়ের জন্য বেপরোয়া থাকবে শ্রীলংকা।  এই সুযোগটা স্মার্ট ক্রিকেট খেলে নিতে হবে বাংলাদেশকে, শ্রীলংকার মূল শক্তি ব্যাটিং গভীরতা এবং ভারসাম্য পূর্ণ বোলিং আক্রমণ। সেয়ানে সেয়ানে লড়াই হবে। আর দুই দলের মুখোমুখি লড়াই ইদানিং উত্তাপ ছড়ায়।

বাংলাদেশ : নাজমুল হোসেন শান্ত ( অধিনায়ক), তাসকিন আহমেদ ( সহ অধিনায়ক ), লিটন কুমার দাস, তানজিদ তামিম, সৌম্য সরকার, তাওহীদ হৃদয়, শাকিব আল হাসান, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, জাকের আলী অনিক, রিশাদ হোসেন, শরিফুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান, তানজিম হাসান শাকিব, তানভীর আহমেদ।

শ্রীলংকা : ওয়ানিনদু হাসারাঙ্গা ( অধিনায়ক), চরিথা আসালংকা, কুশল মেন্ডিস, পাথুন নিশংকা, কামিন্দু মেন্ডিস, সাদিরা সামারাভিক্রামা, এঞ্জেলো ম্যাথিউস, দাসুন শানাকা, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, মহেশ ঠিখসানা, দুনিত ওয়ালালাগে, দুস্মন্ত চামিরা, নুয়ান তুষারা। মহেশ পাথিরানা, দিলশান মধুশঙ্কা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

8 + 2 =