একুশে পদকপ্রাপ্ত নৃত্যশিল্পী জিনাত বরকতউল্লাহ মারা গেছেন

একুশে পদকপ্রাপ্ত নৃত্যশিল্পী জিনাত বরকতউল্লাহ বুধবার বিকাল ৫টার দিকে ধানমন্ডির বাসায় মারা যান (ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্নইলাহি রাজিউন)। জানা গেছে, জিনাত বরকতুল্লাহ দীর্ঘ দিন ধরে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ ও ফুসফুস সংক্রমণে আক্রান্ত ছিলেন। চলতি বছরের মার্চে তাকে আইসিইউতেও রাখা হয়েছিল। একবার তাকে লাইফ সাপোর্টেও নেওয়া হয়েছিল।

তার মেয়ে অভিনেত্রী বিজরী বরকতউল্লাহ মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বিজরী বলেন, “বাসাতেই কিছুক্ষণ আগে মা মারা গেছেন, আমি এখন গ্রিন লাইফ হাসপাতালে এসেছি ডেথ সার্টিফিকেট নিতে। এখন কথা বলার মতো অবস্থায় নাই।”

বাংলাদেশে নৃত্যচর্চায় যে’কজন অগ্রগণ্য ভূমিকা রেখেছেন, তাদেরই একজন জিনাত বরকতুল্লাহ। সত্তরের দশকের শুরুতেই তার নৃত্যচর্চার সূচনা। প্রথম দিকে তিনি শাস্ত্রীয় নৃত্যের তিনটি ধারা ভারতনাট্যম, কত্থক ও মণিপুরী নৃত্যে শিক্ষা লাভ করেন। তবে পরবর্তীতে জিনাত লোকনৃত্যেই নিজেকে অধিকতর মেলে ধরেন।

অভিনয়ে জিনাত বরকতুল্লাহর পথচলা ১৯৮০ সালের ‘মারিয়া আমার মারিয়া’ নাটকের মাধ্যমে। এটি বিটিভিতে প্রচার হয়েছিল। পরবর্তীতে ‘ঘরে বাইরে’, ‘কথা বলা ময়না’, ‘অস্থায়ী নিবাস’, ‘বড় বাড়ি’সহ অন্তত ৮০টি নাটকে অভিনয় করেছিলেন বলে জানা যায়।

দেশের নৃত্যচর্চায় অসামান্য ভূমিকা রাখায় ২০২২ সালে রাষ্ট্রীয় সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত হন তিনি। এছাড়া শিল্পকলা একাডেমি পুরস্কার, ইউনেস্কো পুরস্কারসহ বহু সম্মাননা লাভ করেছিলেন গুণী এই শিল্পী।

ব্যক্তিগত জীবনে তিনি নাট্যকার প্রয়াত মোহাম্মদ বরকতুল্লার স্ত্রী। তার কন্যা জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও নৃত্যশিল্পী বিজরী বরকতুল্লাহ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

20 − ten =