পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ বিদ্যুৎ ভবনের মুক্তি হলে প্রদর্শিত

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ অবলম্বনে নির্মিত পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ আজ সন্ধ্যায় বিদ্যুৎ ভবনের মুক্তি হলে প্রদর্শিত হয়। বিদ্যুৎ সচিব মো. হাবিবুর রহমানের নেতৃত্বে বিদ্যুৎ বিভাগ এবং এর আওতাধীন দপ্তর/সংস্থা/কোম্পানি সমূহের কর্মকর্তাগণ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

ছাত্রনেতা থেকে বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনে নেতৃত্বদান এবং বাংলার ভবিষ্যৎ বিনির্মাণে প্রধান নেতা হয়ে ওঠা একজন চিরঞ্জীব মুজিবের গল্প এই চলচ্চিত্রের মূল প্রেক্ষাপট। চলচ্চিত্রে দেখা যায়, ১৯৪৯ থেকে ১৯৫২ সাল পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু কীভাবে বাঙ্গালিকে ভাষা ভিত্তিক এই অবিস্মরণীয় আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত করে তোলেন। যা মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি হিসেবেই বিবেচিত হচ্ছে।

চলচ্চিত্রটি পরিচালনা, নাট্যরূপ ও সংলাপ লিখেছেন মো. নজরুল ইসলাম। চলচ্চিত্রটির নিবেদক হিসেবেও আছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার ছোটবোন শেখ রেহানা।  চিত্রনাট্য রচনা করেছেন জুয়েল মাহমুদ। তিনি চলচ্চিত্রটির সৃজনশীল পরিচালকও। হায়দার এন্টারপ্রাইজের ব্যানারে নির্মিত এ চলচ্চিত্রের প্রযোজক লিটন হায়দার।

এ প্রসঙ্গে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে আরও গবেষণা প্রয়োজন। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, জীবন – কর্ম, সংগ্রাম-আত্মত্যাগ নতুন প্রজম্মের সামনে নিয়ে আসতে হবে। বাঙ্গালির প্রতি তাঁর মমত্ব-ভালোবাসা , নতুন প্রজন্মকে দেশকে ভালবাসতে, দেশের জন্য কাজ করতে অনুপ্রাণিত করবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন-আদর্শ নিয়ে আরও চলচ্চিত্র নির্মিত হওয়া উচিৎ।

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

17 − 5 =