সুপার এইটে প্রথম জয় ওয়েস্ট ইন্ডিজের

দুই বোলার রোস্টন চেজ ও আন্দ্রে রাসেলের পর ব্যাটার শাই হোপের ঝড়ো হাফ-সেঞ্চুরিতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার এইটে প্রথম জয়ের স্বাদ পেল স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

আজ সকালে সুপার এইটে গ্রুপ-২এ নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে ৫৫ বল হাতে রেখে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৯ উইকেটে বড় ব্যবধানে হারিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রকে। আগের ম্যাচে ইংল্যান্ডের কাছে ৮ উইকেটে হেরে সুপার এইট শুরু করেছিলো ক্যারিবীয়রা। এই পর্বে দুই ম্যাচ খেলে দু’টিতেই হারলো যুক্তরাষ্ট্র। নিজেদের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ১৮ রানে হেরেছিলো যুক্তরাষ্ট্র।

বার্বাডোজে টস জিতে যুক্তরাষ্ট্রকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়ে দ্বিতীয় ওভারেই সাফল্য তুলে নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। যুক্তরাষ্ট্রের ওপেনার স্টিভেন টেইলরকে ২ রানে আউট করেন রাসেল।

দ্বিতীয় উইকেটে ৩২ বলে ৪৮ রানের জুটিতে যুক্তরাষ্ট্রকে লড়াইয়ে ফেরান ওপেনার আন্দ্রিস গাউস ও নীতিশ কুমার। ১৯ বলে ২০ রান করা নীতিশকে শিকার করে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ব্রেক-থ্রু এনে দেন স্পিনার গুদাকেশ মোতি।

দলীয় ৫১ রানে দ্বিতীয় ব্যাটার হিেেসব নীতিশের আউটে বিপদ বাড়ে যুক্তরাষ্ট্রের। ৮৮ রানে ষষ্ঠ উইকেট হারায় তারা। বড় কোন জুটি না হওয়াতে ১৯ দশমিক ৫ ওভারে ১২৮ রানে গুটিয়ে যায় যুক্তরাষ্ট্র। ৩টি চার ও ১টি ছক্কায় ১৬ বলে ২৯ রান করা গাউসের রানই দলের পক্ষে সর্বোচ্চ। ওয়েস্ট ইন্ডিজের রাসেল ৩১ রানে এবং চেজ ১৯ রানে ৩টি করে উইকেট নেন। এ ইনিংসের মাধ্যমে বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে সর্বোচ্চ ২৭ উইকেট শিকারী  সাবেক পেসার ডোয়াইন ব্রাভোর রেকর্ডে ভাগ বসালেন রাসেল।

১২৯ রানের টার্গেট দ্রুত স্পর্শ করতে ব্যাট হাতে নেমেই ঝড় তোলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ওপেনার হোপ। তার ২৩ বলে ৪২ রানের ইনিংসে পাওয়ার প্লেতে বিনা উইকেটে ৫৮ রান পায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সপ্তম ওভারে টি-টোয়েন্টিতে পঞ্চম হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদ নেন ২৬ বল খেলা হোপ। একই  ওভারের শেষ বলে আরেক ওপেনার জনসন চার্লসকে হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ১৪ বলে ২টি চারে ১৫ রান করেন চার্লস।

দলীয় ৬৭ রানে ওয়েস্ট ইন্ডিজের উদ্বোধনী জুটি  ভাঙ্গার পর জুটি বাঁধেন হোপ ও নিকোলাস পুরান। দু’জনে মিলে যুক্তরাষ্ট্রের বোলারদের উপর ঝড় বইয়ে দেন। মাত্র ২৩ বলে অবিচ্ছিন্ন ৬৩ রান তুলে ১১তম ওভারেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের জয় নিশ্চিত করেন হোপ ও পুরান।

৪টি চার ও ৮টি ছক্কায় ৩৯ বলে অপরাজিত ৮২ রান করেন হোপ। ১২ বলে খেলে ১টি চার ও ৩টি ছক্কায় অনবদ্য ২৭ রান করেন পুরান। এই ইনিংসের মাধ্যমে  বিশ্বকাপের এক আসরে সর্বোচ্চ ছক্কার রেকর্ড গড়েন পুরান। ২০১২ সালে ১৬টি ছক্কা মেরেছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিস গেইল। এবারের আসরে এ পর্যন্ত  ১৭টি ছক্কার মালিক পুরান।

এ ম্যাচ শেষে এবারের বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত ৪১২টি ছক্কা হয়েছে। যা বিশ্বকাপের এক আসরে সর্বোচ্চ ছক্কার রেকর্ড। আগেরটি ছিলো ২০২১ সালের বিশ্বকাপে। ঐ আসরে ৪০৫টি ছক্কা হয়েছিলো।

বাসস

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

12 − 9 =